৬ বছরের নিখোঁজ নাবালিকার দেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য চণ্ডীগড়ে! আটক এক নাবালক!

৬ বছরের নিখোঁজ নাবালিকার দেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য চণ্ডীগড়ে! আটক এক নাবালক!
৬ বছরের নিখোঁজ নাবালিকার দেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য চণ্ডীগড়ে! আটক এক নাবালক! / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ অভিযুক্ত এবং নির্যাতিতা উভয়েই নাবালক। একজন খুন করার অভিযোগে ধৃত, বছর ১২-র এক কিশোর। আর যাকে খুন করার অপরাধে তাকে আটক করেছে পুলিশ, সে বছর ছয়েকের এক নাবালিকা।

ঘটনাটি ঘটেছে চণ্ডীগড়ের হাল্লোমাজরা এলাকায়। সূত্রের খবর, শুক্রবার সন্ধ্যায় খেলতে বেরিয়ে আর বাড়ি ফেরেনি বছর ছয়েকের ওই নাবালিকা। রাতভর তল্লাশি চালিয়েও তার কোনও সন্ধান পায়নি পুলিশ এবং পরিবারের সদস্যরা। এরপর শনিবার সকালে চণ্ডীগড়ের হাল্লোমাজরা সংলগ্ন বনাঞ্চলে থেকে তার অর্ধনগ্ন মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় এলাকারই এক বারো বছরের কিশোরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, খুনের আগে ওই নাবালিকার উপর যৌন নির্যাতন করা হয়েছিল।

এই ঘটনা প্রসঙ্গে চণ্ডীগড়ের সিনিয়র পুলিশ সুপার কুলদীপ সিং চাহাল সাংবাদিকদের জানিয়েছেন যে, অভিযুক্ত এলাকার ওই বছর বারোর কিশোর ওই নাবালিকাকে তার সাইকেলে চড়িয়ে নিয়ে যায়। পরে পাথর দিয়ে মাথায় আঘাত করে মেয়েটিকে হত্যা করে। শনিবার সকাল আটটা নাগাদ, পুলিশ ওই নাবালিকার মৃতদেহ উদ্ধার করে। তাকে হত্যা করার জন্য ব্যবহৃত পাথরটিও অপরাধের ঘটনাস্থলের কাছ থেকে পাওয়া গেছে। এই মুহূর্তে তদন্তকারী অফিসাররা ময়নাতদন্তের অপেক্ষায় রয়েছেন।

তদন্তকারী অফিসারদের মধ্যে এক প্রবীণ কর্তা জানিয়েছেন যে, মেয়েটি তার বাবা-মাকে বলে দিতে পারে, ওই কিশোরের কথা, সম্ভবত সেই ভয় থেকেই ওই কিশোর নাবালিকাকে খুন করেছিল। তবে হত্যার আগে, মেয়েটির উপর যৌন নির্যাতন হয়েছিল কিনা, তা নিশ্চিত করতে পোস্টমর্টেম রিপোর্টের অপেক্ষায় রয়েছে পুলিশ।

বাবা-মা এবং ভাইবোনের সঙ্গে হাল্লোমাজরায় থাকত ওই বছর ছয়েকের নাবালিকা। স্থানীয় একটি নার্সারিতে পড়ত সে। মৃত নাবালিকার বাবা স্থানীয় এক কারখানায় কর্মরত ছিলেন। তিনিই পুলিশকে জানিয়েছেন যে, শুক্রবার বিকেলে পাড়ার অন্যান্য শিশুদের সঙ্গে খেলতে যায় মেয়েটি। সন্ধ্যা নাগাদ সেখান থেকেই টিউশনিতে যাওয়ার কথা ছিল তার। কিন্তু মেয়েটি টিউশনিটিতে পৌঁছয়নি, এমনকি খেলতেও যায়নি, এমন খবর পেয়েই সন্দেহ হয় তার মায়ের। সঙ্গে সঙ্গে তিনি স্বামীকে ডেকে পাঠিয়ে, দুজনে মিলে খুঁজতে শুরু করেন মেয়েকে।

রাত সাড়ে আটটা নাগাদ পুরো ঘটনাটি তাঁরা জানান পুলিশকে। পুলিশ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে রাত তিনটে পর্যন্ত তল্লাশি চালিয়েও, নাবালিকা মেয়েটিকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়নি। পরদিন সকালে ফের খোঁজ শুরু হলে, ওই নাবালিকার মৃতদেহ উদ্ধার হয় জঙ্গল থেকে। পরে এলাকার সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখার সময়, পুলিশ এক কিশোরকে মেয়েটিকে সাইকেলে নিয়ে যেতে দেখে। অবিলম্বে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এই মুহূর্তে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.