এই দিনেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক করেছিলেন তেন্ডুলকর! শুভেচ্ছায় ভরে উঠল সোশ্যাল মিডিয়া

এই দিনেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক করেছিলেন তেন্ডুলকর! শুভেচ্ছায় ভরে উঠল সোশ্যাল মিডিয়া / Image Source: Twitter @BCCI
এই দিনেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক করেছিলেন তেন্ডুলকর! শুভেচ্ছায় ভরে উঠল সোশ্যাল মিডিয়া / Image Source: Twitter @BCCI

১৯৮৯ সালের ১৫ নভেম্বর। আজ থেকে ৩২ বছর আগে আজকের দিনেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রেখেছিলেন এক কিশোর। পরবর্তীতে তিনিই হয়ে উঠেছিলেন ‘গড অফ ক্রিকেট’ অর্থাৎ ক্রিকেটের ঈশ্বর! টেস্টে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের বিরুদ্ধে করাচির বাইশ গজে নেমে মাত্র ১৫ রানেই আউট হয়ে গেলেও অভিষেকেই সেই কিশোর বুঝিয়েছিলেন, তিনি এখানে রাজত্ব করতেই এসেছেন। ক্রিকেট বিশ্বে সে দিনই আবির্ভাব ঘটেছিল এক মহাতারকার! বাইশ গজের কাছে এই দিনটা তাই কেবলমাত্র একটা সামান্য তারিখে বাঁধা নয়, বরং তা ‘রেড লেটার ডে’!

আর ভনিতা করে লাভ নেই! এতক্ষণে নিশ্চয়ই বোঝা গিয়েছে কার কথা বলা হচ্ছে। হ্যাঁ, আন্দাজটা ঠিকই! তিনি, ক্রিকেট ঈশ্বর শচীন তেন্ডুলকরই বটে! আজ থেকে ৩২ বছর আগে আজকের দিনেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ঘটেছিল যাঁর৷ তখন বয়স মাত্র ১৬ বছর ২০৫ দিন। আর সেই বয়সেই পাকিস্তানের মতো কড়া প্রতিদ্বন্দ্বীর চোখে চোখ রেখে লড়াইটা শিখে নিয়েছিলেন। তাই সে ম্যাচে মাত্র কয়েক রানেই আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরলেও পরবর্তীতে সেই লড়াই যেন সহজাত হয়ে গিয়েছিল। সেবার ভারত ম্যাচ ড্র করলেও পরে এমনই বহু ম্যাচ পাকিস্তানের গ্রাস থেকে কেড়ে নিজের দেশকে জিতিয়েছিলেন শচীন।

এরপর বদলেছে কত সময়! ধীরে ধীরে শচীন হয়ে উঠেছেন ভারতীয় ক্রিকেটের এক জীবন্ত কিংবদন্তি। গড়েছেন একাধিক রেকর্ড। যার বেশিরভাগই এখনও অটুট। তিনিই একমাত্র ক্রিকেটার যাঁর সেঞ্চুরির সেঞ্চুরি আছে ঝুলিতে। শুধু ভারতীয় ক্রিকেটেই নয়, বিশ্ব ক্রিকেটেও তাঁর অবদান কখনও ভোলার নয়। ক্রিকেট জীবনের পড়তি বেলায় আবার আজকের দিনেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায়ও জানিয়েছিলেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে জীবনের শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে বাইশ গজকে আলভিদা জানান তিনি৷ এই বিশেষ দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে বিসিসিআইও ট্যুইট করে জানান দিয়েছে। পাশাপাশি অগণিত ভক্তের শুভেচ্ছা বার্তায় আজ ভেসে গিয়েছেন মাস্টার ব্লাস্টার।