ভয়ানক কাণ্ড! শ্মশান থেকে মৃতদেহের পোশাক চুরি করে বিক্রি! গ্রেপ্তার ৭

ভয়ানক কাণ্ড! শ্মশান থেকে মৃতদেহের পোশাক চুরি করে বিক্রি! গ্রেপ্তার ৭
ভয়ানক কাণ্ড! শ্মশান থেকে মৃতদেহের পোশাক চুরি করে বিক্রি! গ্রেপ্তার ৭

করোনার দাপটে বিপর্যস্ত গোটা দেশ। তারমধ্যেই এমন ঘটনার সম্মুখীন হল উত্তরপ্রদেশের পুলিশ যা দেখে চোখ কপালে উঠতে বাধ্য! রাজ্যের বাঘপত অঞ্চলের একাধিক শ্মশান ও সমাধিস্থল থেকে মৃতদেহের পোশাক চুরি করে বিক্রি করা হত। রবিবার এই ঘটনার কথা প্রকাশ্যে আনে বাঘপত পুলিশ। তারপরই এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে চাঞ্চল্য। যদিও চুরির দায়ে ইতিমধ্যেই ৭ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

জানা গিয়েছে, ওই এলাকায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃতদের সংখ্যা নির্ধারণ করার সময়ই ঘটনাটির কথা সামনে আসে। মৃহদেহ গণনার সময় দেখা যায় তাদের শরীরে কোনও পোশাক নেই। পুলিশ সূত্রে খবর, মৃতদেহের শরীর থেকে শাড়ি বা অন্য পোশাক, গয়না, দেহ ঢাকার চাদর ইত্যাদি চুরি করা হত। এরপর পোশাকগুলি ভালো করে কেচে গোয়ালিওরের এক পোশাক কোম্পানির নামে লেবেল লাগানো হত। তারপর সেগুলি বাজারে বিক্রি করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, এই ঘটনায় যুক্ত ছিলেন ৭ জন। ওই এলাকার বেশ কিছু কাপড় ব্যবসায়ীও ৭ জন চোরের সঙ্গে চুক্তি করেছিলেন। তাঁদের দোকানেই দিয়ে আসা হত পোশাকগুলি। এই কাজের বিনিময়ে দিনপ্রতি ৩০০ টাকা হাতে পেত ৭ চোর। এলাকায় প্রায় ১০ বছর ধরে এই কাজ করে যেত ৭ চোর। তাদের মধ্যে ৩ জন একই পরিবারের সদস্য।

ইতিমধ্যেই তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাঘপত পুলিশের সার্কেল অফিসার অলোক সিং জানিয়েছেন, “এই ঘটনায় ৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই তাদের কাছ থেকে ৫২০টি চাদর, ১২৭ কুর্তা, ৫২টি সাদা শাড়ি ও অন্য আরও কিছু পোশাক উদ্ধার করা হয়েছে।” চুরির ধারা ছাড়াও ধৃতদের বিরুদ্ধে অতিমারী আইনে মামলাও দায়ের করেছে পুলিশ।