অবিশ্বাস্য! ১৮ বছর বয়স থেকে দিনে শুধু আধ কেজি বালি খেয়ে দিন কাটছে ৭৫ বছরের এই বৃদ্ধার

অবিশ্বাস্য! ১৮ বছর বয়স থেকে দিনে শুধু আধ কেজি বালি খেয়ে দিন কাটছে ৭৫ বছরের এই বৃদ্ধার
অবিশ্বাস্য! ১৮ বছর বয়স থেকে দিনে শুধু আধ কেজি বালি খেয়ে দিন কাটছে ৭৫ বছরের এই বৃদ্ধার

বয়স প্রায় ৭৫। কিন্তু এই বয়সেও তাঁর শারীরিক দক্ষতা হার মানাবে কমবয়সীদের। ৭৫ বছর বয়সেও দারুণ স্বাস্থ্য তাঁর। নিয়মিত কঠোর পরিশ্রমেও ক্লান্তি নেই। কিন্তু এর পিছনের রহস্যটা ঠিক কী? যদি বলি আধ কেজি বালি! হ্যাঁ, ঠিকই দেখেছেন। প্রতিদিন নিয়ম করে আধ কেজি বালি খেয়ে দিন কাটাচ্ছেন উত্তরপ্রদেশের বারাণসীর বাসিন্দা কুসুমাবতী দেবী। বয়সের শেষ পর্যায়ে শেষেও তাঁর স্বতঃস্ফূর্ত থাকার রহস্যও সেই বালিই!

জানা গিয়েছে, তিনে তিন বেলা সময়মতো গঙ্গার বালি খান কুসুমাবতী দেবী। ১৮ বছর বয়স থেকেই এই একই রুটিনে চলছেন তিনি। গত ৪০-৪৫ বছর ধরে শুধু বালি খেয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন এই বৃদ্ধা। কারণ হিসেবে তিনি জানিয়েছেন, ১৮ বছর বয়সে চিকিৎসকের নির্দেশে কান্দের রাখি খাওয়া শুরু করেন তিনি, যা ধীরে ধীরে বালিতে পরিণত হয়। এখন প্রতিদিন প্রায় এক থেকে আধা কেজি বালি খান বছর পঁচাত্তরের এই বৃদ্ধা।

কুসুমাবতী দেবীর দুই পুত্র রয়েছে। তিন নাতিও রয়েছে তাঁর। কিন্তু নিজের জেদ এবং কঠোর পরিশ্রমের কারণে তিনি একটি আলাদা বাড়িতে থাকেন। নিজে একটি মুরগির খামার চালান এবং খামারেরই একটি ছোট অংশে বাড়ি তৈরি করে জীবনযাপন করেছেন বৃদ্ধা। তাঁর দিন কাটছে বালি খেয়ে। তাঁর নাতিরা গঙ্গা থেকে বালি এনে ব্যবস্থা করে, ধুয়ে তা খাওয়ার যোগ্য করে তোলে। তা-ই তিন বেলা খান বৃদ্ধা।

স্বাভাবিকভাবেই গ্রামের এক অন্যতম বিস্ময়ে পরিণত হয়েছেন কুসুমাবতী দেবী। গ্রামের বাসিন্দারা জানাচ্ছেন, বৃদ্ধা কবে থেকে বালি খাচ্ছেন তা তাদের জানা নেই। কিন্তু তাঁর এই অভ্যাসের কারণে সারা অঞ্চলেই তিনি বিখ্যাত। তাঁর শারীরিক দক্ষতা আজও দারুণ আলোচনায়। কুসুমাবতী দেবীর ধারণা, বালি না খেলেই তাঁর স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটবে। তাই প্রতিদিন বাড়তেই থাকে বালি খাওয়ার পরিমাণ। এভাবেই জীবনের বাকি দিনগুলোও কাটাতে চান এই বারাণসীর এই বৃদ্ধা।