তৃতীয় দফায় অশান্তি এড়াতে মোতায়েন থাকবে ৮৩২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী

তৃতীয় দফায় অশান্তি এড়াতে মোতায়েন থাকবে ৮৩২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী
তৃতীয় দফায় অশান্তি এড়াতে মোতায়েন থাকবে ৮৩২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী

তৃতীয় দফায় অশান্তি এড়াতে একেবারে কোমর বেঁধে নেমেছে নির্বাচন কমিশন। মোট ৮৩২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন থাকবে সমস্ত ভোট কেন্দ্র মিলিয়ে। গত দু’‌দফায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ করেছিল তৃণমূল । তাই বাহিনী নিয়ে বিশেষ সতর্ক নির্বাচন কমিশন। পাশাপাশি করোনা নিয়ে সতর্ক কমিশন ।

তৃতীয় দফায় রাজ্যে ভোট গ্রহণ হবে হাওড়া, হুগলি এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনায়। এর মধ্যে রয়েছে হাওড়ার ৭টি, দক্ষিণ ২৪ পরগনার ১৬টি এবং হুগলির ৮টি আসনে ভোট হবে। প্রথম দফার নির্বাচনের থেকে দ্বিতীয় দফার ভোটে অনেক বেশি অভিযোগ, অশান্তির খবর সামনে এসেছিল। এই অবস্থায় তৃতীয় দফার নির্বাচনের আগে আরও সতর্ক কমিশন। থাকছে ব্যাপক কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা। তৃতীয় দফায় অশান্তি এড়াতে থাকছে ৮৩২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী । তার মধ্যে ৬১৮ কোম্পানি বুথের নজরদারিতে মোতায়েন করা হবে। বাকি বাহিনীকে এরিয়া ডোমিনেশনের কাজে ব্যবহার করা হবে। নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যাচ্ছে, অশান্তি এড়াতে শুধুমাত্র দক্ষিণ ২৪ পরগনাতেই থাকছে ৩০৭ কোম্পানি। এর মধ্যে বারুইপুর পুলিশ জেলায় ১৩০ কোম্পানি, ডায়মন্ডহারবার পুলিশ জেলায় ১১৩ কোম্পানি, সুন্দরবন পুলিশ জেলায় ৬৪ কোম্পানি। হাওড়তেও ১৪৪ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকছে। তার মধ্যে ১৩২ কোম্পানি থাকছে হাওড়া গ্রামীণে ও হাওড়া কমিশনারেটে থাকছে ১১ কোম্পানি। হুগলি গ্রামীণে থাকছে ১৬৭ কোম্পানি বাহিনী।

তৃতীয় দফার নির্বাচনে তিনটি জেলার ক্ষেত্রেই ১৪৪ ধারা।।।আজকে সন্ধ্যে থেকেই চালু করা হবে।।।চলবে কালকে ভোট শেষ না হওয়া পর্যন্ত।।।দক্ষিণ ২৪ পরগনায় বুথের ২০০ মিটার এর মধ্যে ভোটার এবং ভোট কর্মী ছাড়া আর কেউ যেতে পারবেন না।।আর হাওড়া এবং হুগলীর ক্ষেত্রে বুথের ১০০ মিটার এর মধ্যে।।ওয়েব কাস্টিং ঠাকবে টোটাল ৫৫০৭টি। এর মধ্যে দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ২৮৩১ টি, হাওড়াতে ১২২৫টি,হুগলী তে ১৪৫১ টি ওয়েব কাস্টিং থাকবে। মাইক্রো অবজারভার থাকবে ৯১৪গুলি। সিসিটিভি ১৬৯৬ গুলি এবং ভিডিও ক্যামেরা ৩২৬ গুলি থাকবে।

এছাড়া গত দু’‌দফায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ করেছিল তৃণমূল। তাই এই দফায় বাহিনী নিয়ে বিশেষ সতর্ক নির্বাচন কমিশন । প্রথম দুই দফায় অভিযোগ উঠেছিল, কখনও বুথের ভিতর ঢুকে শংসাপত্র দেখতে চাইছেন, কখনও আবার গ্রামে ঢুকে ভোটারদের শাসাচ্ছেন। অভিযোগের পর এবার নড়েচড়ে বসল কমিশন। এডিজি আইনশৃঙ্খলা জগমোহন এবং কেন্দ্রীয় বাহিনীর নোডাল অফিসার অশ্বিনী কুমারের সঙ্গে আজ বৈঠক করেন কমিশনের সিইও। তাতেই স্পষ্ট নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, বাহিনী শংসাপত্র দেখছে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি আগামী দফাগুলিতে যাতে না দেখা যায়। কেন্দ্রীয় বাহিনী পরিচয়পত্র দেখতে চাইতে পারবে না। পাশাপাশি ১১ টি পরিচয়পত্রের মধ্যে যে কোনও একটা দিয়ে ভোট দেওয়া যাবে বলে জানিয়েছে কমিশন।

উল্লেখ্য, আগামীকাল মঙ্গলবার হাওড়ার সাতটি আসনে ভোটগ্রহণ হবে । যে আসনে ভোট গ্রহণ হবে সেগুলি হল– উলুবেড়িয়া উত্তর, উলুবেড়িয়া দক্ষিণ, শ্যামপুর, বাগনান, আমতা, উদয়নারায়ণপুর ও জগত্‍বল্লভপুর। হুগলিতে ভোট হবে জাঙ্গিপাড়া, হরিপাল, ধনেখালি, তারকেশ্বর, পুরশুড়া, আরামবাগ, গোঘাট ও খানাকুল। অন্যদিকে দক্ষিণ ২৪ পরগনার কেন্দ্রগুলি হল– বাসন্তী, কুলতলি, কুলপি, রায়দিঘি, মন্দিরবাজার, জয়নগর, বারুইপুর পূর্ব, বারুইপুর পশ্চিম, ক্যানিং পশ্চিম, ক্যানিং পূর্ব, মগরাহাট পূর্ব, মগরাহাট পশ্চিম, ডায়মন্ডহারবার, ফলতা, সাতগাছিয়া, বিষ্ণুপুর। একগুচ্ছ স্পর্শকাতর বুথ রয়েছে। সেগুলিকে বাড়তি নজরদারির ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.