হাওড়ার বেসরকারি হোমে লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিময়ে শিশু দত্তক দেওয়ার অভিযোগ! গ্রেপ্তার ৯

হাওড়ার বেসরকারি হোমে লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিময়ে শিশু দত্তক দেওয়ার অভিযোগ! গ্রেপ্তার ৯ / প্রতীকী ছবি
হাওড়ার বেসরকারি হোমে লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিময়ে শিশু দত্তক দেওয়ার অভিযোগ! গ্রেপ্তার ৯ / প্রতীকী ছবি

লক্ষ লক্ষ টাকায় শিশু দত্তক দেওয়ার অভিযোগ উঠল হাওড়ার এক বেসরকারি হোমের বিরুদ্ধে। বিপুল অর্থের বিনিময়ে বেআইনিভাবে শিশু দত্তক দেওয়ার জন্য ওই হোমের বিরুদ্ধে হাওড়া মহিলা থানায় অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে। তার প্রেক্ষিতে হোমের ৯ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সূত্রের খবর, গ্রেপ্তারের তালিকায় হাওড়ার প্রাক্তন ডেপুটি মেয়রের পুত্রবধূ এবং একজন সরকারি আধিকারিকও রয়েছেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, হাওড়ার ওই হোমটি চালাতেন স্থানীয় এক প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতার আত্মীয়। বিভিন্ন জায়গা থেকে শিশুদের উদ্ধার করে ওই হোমে রাখা হতো। একেবারে সদ্যোজাত শিশুরাও সেখানে থাকত। শর্তসাপেক্ষে নিঃসন্তান দম্পতিরা সেখান থেকে অনলাইনে শিশুদের দত্তক নিতে পারতেন। অভিযোগ, সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়েই লক্ষ লক্ষ টাকায় শিশুদের দত্তক দেওয়ার নামে বিক্রি করে দেওয়া হতো। দত্তক দেওয়ার জন্য ৩-৯ লাখ টাকাও নেওয়া হতো বলে জানা গিয়েছে। এমনকি শিশুদের উপর যৌন নিগ্রহ করারও অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনার প্রেক্ষিতে এলাকারই এক ব্যক্তি নবান্নতে অভিযোগ জানান। এরপরই হাওড়া সিটি পুলিশের কমিশনার সি সুধাকরের নেতৃত্বে তদন্তে নামে বিশাল পুলিশ গোয়েন্দা বাহিনী। শুক্রবার রাত থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালানো হয়। হোমে থাকা প্রত্যেক শিশুকে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপরই হোমের সঙ্গে যুক্ত ৯ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এদের মধ্যে রয়েছেন হাওড়ার প্রাক্তন ডেপুটি মেয়র মিনতি অধিকারীর পুত্রবধূ গীতশ্রী অধিকারী। এক সরকারি আধিকারিককেও আটক করা হয়েছে বলে খবর।

জানা গিয়েছে, দীর্ঘদিন ধরেই ওই বেসরকারি হোমের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ ছিল। সম্প্রতি ফের অভিযোগ পেয়ে তল্লাশি অভিযান চালায় পুলিশ। এখন ওই ঘটনার সঙ্গে আর কারা জড়িত বা ঘটনার জাল আর কতদূর বিস্তৃত, তার তদন্তে একটি বিশেষ টিম গঠন করেছে সিটি পুলিস। ধৃত অভিযুক্তদের হেফাজতে নিয়ে জেরাও করা হবে বলে খবর। অন্যদিকে, ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রী শশী পাঁজা। দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবিও করেছেন তিনি।