জলপাইগুড়িতে ভোট দিলেন মিমি! তাঁর সাথে সেলফি তুলে বিপাকে পরলেন এক ভোটকর্মী

জলপাইগুড়িতে ভোট দিলেন মিমি! তাঁর সাথে সেলফি তুলে বিপাকে পরলেন এক ভোটকর্মী
জলপাইগুড়িতে ভোট দিলেন মিমি! তাঁর সাথে সেলফি তুলে বিপাকে পরলেন এক ভোটকর্মী

নিজস্ব প্রতিবেদনঃ জলপাইগুড়িঃ রাজ্যে শুরু হয়ে গেছে ভোট যুদ্ধ। সম্পন্ন হয়েছে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ দফার ভোট প্রক্রিয়া। আর আজ চলছে পঞ্চম দফার ভোট। বাকি রইলো ৩ দফার ভোট। রাজ্যের শাসক দলে কে আধিপত্ত বিস্তার করবে তা নিয়ে চলছে রাজনৈতিক বিরোধ। রাজনৈতিক দলগুলি তাঁদের অবস্থান পাকাপক্ত করতে বহু আগে থেকেই আসরে নেমে পড়েছে। এদিন জলপাইগুড়ি সদর বিধানসভা কেন্দ্রের ভোটার অভিনেত্রী তথা যাদবপুরের সাংসদ মিমি চক্রবর্তীও ভোটদান করেন। আর সেসময় তাঁকে নিয়ে সেলফি তুলতে ব্যস্ত হয়ে উঠে অন্যান্যরা।

উল্লেখ্য এদিন জলপাইগুড়ি শহরের পাণ্ডাপাড়া জুনিয়র বেসিক স্কুলে ভোট দিতে আসেন অভিনেত্রী তথা যাদবপুরের সাংসদ মিমি চক্রবর্তী। তারপর সেনিটাইজার নিয়ে হাতে গাল্ভস পড়ে, থার্মাল চেকিং করে ভোট দিতে ঢোকেন তিনি। তাঁর ছবি তুলতে কিছুজন বুথের ভিতর এগিয়ে আসতেই তিনি চিৎকার করে বলেন, কী করছেন, এরমক করলে তাঁর এবং ওনাদের চাকরি যাবে। আর তারপর তিনি বাইরে বেড়িয়ে আসতেই যাদবপুরের সাংসদ অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তীর সঙ্গে সেলফি তুলে বিপাকে পরেন এক ভোট কর্মী। কমিশনে অভিযোগ যেতেই ওই কর্মীকে সরিয়ে দিয়ে এক মহিলা কর্মী দেওয়া হয়। দেখুন ভিডিও..

প্রসঙ্গত জলপাইগুড়ি শহরের পাণ্ডাপাড়া জুনিয়র বেসিক স্কুলে ভোট দিয়ে বুথ থেকে বের হয়ে বারান্দায় আসতেই মিমির সঙ্গে সেলফি তুলে বির্তকে পড়লেন ওই বুথের সেকেন্ড পোলিং অফিসার। বুথ নম্বর ১৭/১৫৫। শনিবার মিমি নিজেই বুথে আসেন। সঙ্গে ছিলেন সাংসদের নিরাপত্তা কর্মীরা৷ বিরোধীদের অভিযোগ, মিমি চক্রবর্তী অভিনেত্রী পাশাপাশি তিনি বর্তমানে একজন সাংসদ। ভোট কেন্দ্রে গেলে তিনি একজন সাধারণ ভোটার। একজন ভোটারের সঙ্গে কিভাবে ভোট কর্মীরা সেলফি তুলতে পারেন তাও আবার বুথে।

আর এই খবর পৌঁছায় জলপাইগুড়ি জেলা নির্বাচন কমিশনে। খবর পেয়েই তড়িঘড়ি ওই সেকেন্ড পুলিং অফিসারের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে কমিশন। জেলা নির্বাচন কমিশন সুত্রে জানা গিয়েছে, ভোট কর্মী হয়ে ভোটারদের সঙ্গে সেলফি তোলা ঠিক নয়৷ জেলা শাসক তথা নির্বাচনী আধিকারিক মৌমিতা গোদারা বসু বলেন,” অভিযোগ পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ওই ভোট কর্মীকে সরিয়ে মহিলা কর্মী দেওয়া হয়েছে।” অন্যদিকে মিমি জানান, শান্তি পূর্ণ করে ভোট হচ্ছে।