পণ দিতে না পারায় বধূকে শ্বাসরোধ করে খুন করলো স্বামী

Image Source: Google

নিজস্ব প্রতিবেদনঃ পণের মতন জঘন্য অপরাধ যেন দিন দিন বেড়েই চলেছে। আর এবার দাবিমতো পণের টাকা না দিতে পারায় বধূকে খুনের অভিযোগ উঠল স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ির বিরুদ্ধে। ঘটনাস্থল দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিষ্ণুপুর থানার বাহাদুরপুর গ্রামের বাগপাড়া। মৃতার শাশুড়িকে আটক করেছে পুলিশ। স্বামী ও শ্বশুর পলাতক।

স্থানীয় সূত্রের খবর, বজবজের মৌখালির নস্করপাড়ার বাসিন্দা মৌমিতা নস্করের সঙ্গে বিষ্ণুপুরের বাহাদুরপুরের বাগপাড়ার দেবাশিস বাগের বিয়ে হয় বছর চারেক আগে। মৌমিতার আত্মীয়দের অভিযোগ, কিছুদিন ধরেই স্বামী দেবাশিস ও শ্বশুর-শাশুড়ি বাপেরবাড়ি থেকে টাকা আনার জন্য মৌমিতার উপর চাপ দিতে শুরু করে। তাঁদের বেশ কয়েকবার টাকা এনেও দেন মৌমিতা। কিন্তু দিন দিন চাহিদা বাড়তেই থাকে বাগ পরিবারের। কিন্তু দাবি মতো টাকা দিতে না পারায় শুরু হয় মানসিক ও শারীরিক অত্যাচার। তাদের একটি কন্যাসন্তানও আছে।

এরপর মঙ্গলবার রাতে মৌমিতার বাপেরবাড়িতে খবর যায় যে মৌমিতা আত্মহত্যা করেছেন, তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। খবর পেয়েই হাসপাতালে ছুটে যান বধূর পরিবারের সদস্যরা। মৃতার বাপের বাড়ির অভিযোগ, মৌমিতাকে মারধরের পর শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে এবং তারপর প্রমাণ লোপাটের জন্য তাঁকে গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। মৌমিতাকে খুনের অভিযোগ দায়ের করেছে বাপের বাড়ির সদস্যরা। অভিযোগের ভিত্তিতে শাশুড়িকে আটক করেছে পুলিশ। তবে বধূর স্বামী ও শ্বশুর পলাতক। পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

আরও পড়ুনঃ  ভূস্বর্গে অতিরিক্ত তুষারপাত, মাথায় হাত আপেল চাষীদের

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.