পায়নি পণ! তাই গৃহবধূকে নগ্ন করে অত্যাচার! করা হল ভিডিও

পায়নি পণ! তাই গৃহবধূকে নগ্ন করে অত্যাচার! করা হল ভিডিও
পায়নি পণ! তাই গৃহবধূকে নগ্ন করে অত্যাচার! করা হল ভিডিও / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ পণের দাবি পরিপূর্ণ হয়নি। তাই বিয়ের পর থেকেই পণের দাবিতে গৃহবধূর উপর চলত শ্বশুরবাড়ির সদস্যদের অকথ্য অত্যাচার। এবার শ্বশুরবাড়ির লোকেদের সেই অত্যাচার সব মাত্রা ছাড়িয়ে গেল।

এবার বছর চব্বিশের ওই গৃহবধূকে নগ্ন করে মারধরের অভিযোগ প্রকাশ্যে এল। শুধু তাই নয়, সেই অত্যাচারের ঘটনা ক্যামেরাবন্দিও করা হয়েছে। এই ঘটনার কথা প্রকাশ্যে আসতেই অভিযুক্ত শ্বশুরবাড়ির সদস্যরা বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাটি ওড়িশার কেন্দ্রাপাড়া জেলার ঘটনা। ঘৃণ্য এই ঘটনার একটি ভিডিও ভাইরাল হতেই প্রশাসনের নজরে আসে গোটা বিষয়টি।

যে ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, মার খেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েছে গৃহবধু। গায়ে নেই একটি সুতো পর্যন্ত। তার উপর তাঁকে বেশ কয়েকজন পুরুষ মারধর করছে। এরপর কেউ একজন গায়ে লজ্জা ঢাকার জন্য এক টুকরো কাপড় ছুঁড়ে দেয়। একখণ্ড কাপড় দিয়ে ওই গৃহবধূ কোনওমতে গা ঢাকার চেষ্টা করে। তার ওপরেই চলে নারকীয় অত্যাচার। এক মহিলা বাধা দেওয়ার চেষ্টা করে, কিন্তু তাঁকেও ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দিয়ে আবারও মারা হয় তাঁকে।

এদিকে স্থানীয় এবং পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সম্প্রতি কেন্দ্রাপাড়ার কোরুক গ্রামের ওই গৃহবধূর উপর ফের অত্যাচার শুরু হলে প্রতিবেশীরা বাধা দিতে যান। কিন্তু ওই গৃহবধূর শ্বশুরবাড়ির লোকেরা তাঁদের কোনও কথাতেই কর্ণপাত করেনি। শেষ পর্যন্ত খবর দেওয়া হয় গৃহবধূর বাপেরবাড়িতে।

খবর পেয়ে নির্যাতিতা ওই গৃহবধূর কাকা আইনের দ্বারস্থ হন। তাঁর ভাইঝির শ্বশুরবাড়ির সদস্যদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন তিনি। শেষপর্যন্ত ওই নির্যাতিতা মহিলাকে শ্বশুরবাড়ির লোকেদের হাত থেকে উদ্ধার সম্ভব হয়।

অন্যদিকে অভিযোগ পাওয়ার পর তদন্তে নামে পুলিশ। প্রথমেই নির্যাতিতার বয়ান রেকর্ড করে পুলিশ। তবে তাঁর শ্বশুরবাড়িতে পুলিশ পৌঁছে দেখে, সেখানে কেউ নেই সবাই পালাতক। প্রতিবেশীদের সঙ্গে কথা বলে পুলিশ। প্রাথমিকভাবে অভিযোগের সত্যতা জানার চেষ্টা করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, তাঁরা অভিযুক্তদের ধরতে বদ্ধপরিকর। ওড়িশা পুলিশ এই মামলায় একটি বিশেষ দল তৈরি করে অভিযুক্তদের ধরার চেষ্টা করছে। শেষপর্যন্ত পাওয়া খবরে জানা গিয়েছে, অভিযুক্তরা এখনও পুলিশের হাতে ধরা পড়েনি। তবে পুলিশ ভিডিও-সহ অন্যান্য তথ্য-প্রমাণ জোগাড় করার চেষ্টা করছে। গোটা ঘটনা ঘিরে ব্যাপক ক্ষোভ ছড়িয়েছে কেন্দ্রাপাড়ার কোরুক গ্রামে। পাশাপাশি অভিযুক্তদের কড়া শাস্তির দাবিও উঠেছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.