বাঘের মুখ থেকে উদ্ধার স্বামীকে! দিদি নং ওয়ানের ভিডিও নিয়ে ট্রোলারদের মোক্ষম জবাব নেটিজেনদের

বাঘের মুখ থেকে উদ্ধার স্বামীকে! দিদি নং ওয়ানের ভিডিও নিয়ে ট্রোলারদের মোক্ষম জবাব নেটিজেনদের
বাঘের মুখ থেকে উদ্ধার স্বামীকে! দিদি নং ওয়ানের ভিডিও নিয়ে ট্রোলারদের মোক্ষম জবাব নেটিজেনদের

বর্তমানে বাংলা ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম চর্চিত রিয়েলিটি শো রচনা ব্যানার্জির দিদি নং ওয়ান শো। এই শো তে মাঝে মধ্যেই লড়াকু মানুষদের জীবন কাহিনী শোনানো হয়। সম্প্রতি এমনই এক রোমহর্ষক কাহিনী উঠে এল প্রোমোতে। সুন্দরবনের এক মহিলার কাহিনী। কিভাবে তিনি বাঘের হাত থেকে নিজের স্বামীকে বাঁচিয়ে আনেন সেই কাহিনী তিনি বলেন। যা শুনে রীতিমত স্তম্ভিত খোদ রচনা ব্যানার্জি। তাছাড়াও তিনি তুলে ধরেন তার পরিবারের অসহায় দিকের কথা। একমাত্র জামাই ও রয়াল বেঙ্গল টাইগার এর শিকার হয়েছেন।

সুন্দরবনের ওই মহিলা জোৎস্না বলেন একদিন মাছ ধরতে গিয়ে বাঘের মুখোমুখি হয় তার স্বামী। তখন তিনি ভাবেন আর নয়। আর কাওকে তিনি হারাবেন না। বাঘটি তার স্বামীর কাঁধে ঝাঁপিয়ে বসে। তখন ঐ মহিলা বাঘের কানে আঙ্গুল দিয়ে তাকে টেনে আনেন। আর রক্ষা করেন স্বামীকে। ভেবেই নেন বাঁচলে দুজন একসঙ্গে বাঁচবো নইলে মরবো। এই কাহিনী শুনে নেট পাড়ার একাংশ তার সাহসের প্রশংসা করেছেন। আবার একাংশ মিম বানিয়েছে। একটি মিমে দেখা যায় লোকটির জামার তলায় হাত ঢোকানো কিন্তু নীচ দিয়ে হাত দেখা যাচ্ছে।

এক নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় হাসির খোরাক শুরু হয়। অবশ্য সেই পেজ টিকেই দোষ দেন নেট জনতার একাংশ। জি বাংলার তরফ থেকে দাবি করা হয়নি স্বামীর হাত নেই। তবে জোৎস্না জানান তার হাত অবস। তাই নেট জনতার একাংশ এই মীমের প্রতিবাদ করেন এবং জানান যারা এই জঘন্য কাজ করছেন তাদের ধিক্কার জানানো উচিত। ওই মহিলা সত্যিই অসহায় এবং তার কাহিনী মিথ্যে নয় বলেও দাবি করেন অনেকজন।