এখনই জোটের হাত ছাড়তে নারাজ আব্বাস

এখনই জোটের হাত ছাড়তে নারাজ আব্বাস
এখনই জোটের হাত ছাড়তে নারাজ আব্বাস

একুশের নির্বাচনে ভরাডুবি সংযুক্ত মোর্চার। এরপরে আর আইএসএফ-এর সঙ্গে আর কোনওরকম সম্পর্ক রাখতে চান না বলে জানিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী। তবে জোটের হাত ছাড়তে এখনই রাজি নন আইএসএফ প্রধান আব্বাস সিদ্দিকী।

প্রথম থেকেই সংযুক্ত মোর্চার জোট নিয়ে ধোয়াশা ছিল। সাধারণ মানুষও যে এই জোটকে ভালো ভাবে নেয়নি তা স্পষ্ট হয়েছে ভোট ব্যাংকে। এদিকে প্রথম দিকে আসন বণ্টন নিয়েও সমস্যা দেখা দেয় কংগ্রেস আইএসএফের মধ্যে। কিন্তু শেষ বেলায় দেখা গেলো কংগ্রেস-বাম শূন্য বিধানসভা গঠন হলেও আইএসএফ একটি আসন পেয়ে জায়গা করে নিয়েছে বিধানসভায়।

এদিকে, বাম শরিকীদলগুলিও বলছেন কার্যত তাঁদের অন্ধকারে রেখেই জোট গঠন হয়েছে। তবে এই সব কিছুকে মাথায় না রেখে জোটের সঙ্গেই থাকতে চাইছেন আব্বাস। তাঁর কথায়, “হার-জিত হতেই পারে। তা বলে জোট এগিয়ে যাবে না এটা হতে পারে না। বাকি যাঁরা রয়েছেন তাঁরা কী ভাবছেন না ভাবছেন তা আলোচনার মধ্যে দিয়ে উঠে আসবে।”

আব্বাস সিদ্দিকী ও অধীর রঞ্জন চৌধুরীর মতপার্থক্যের ছবি বিভিন্ন সময় উঠে এসেছে। আর ফলাফল ঘোষণার পর এবার কোনওরকম রাখঢাক না করেই অধীরবাবু সরাসরি জানিয়ে দিয়েছেন যে, ভবিষ্যতে তাঁরা আর ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের সঙ্গে কোনও সম্পর্ক রাখতে চান না। প্রদেশ কংগ্রস সভাপতি জানান, মোর্চার ব্যর্থতা নিশ্চিত ছিল, কারণ বাংলার মানুষ এই জোটকে মেনে নেননি।

এই প্রসঙ্গে পাল্টা আব্বাস সিদ্দিকী জানান, “যাঁরা ইন্ডিয়ান সেক্যুলার ফ্রন্টের নেতৃত্বে আছেন বা যাঁরা সংযুক্ত মোর্চার দায়িত্বে আছেন তাঁরা নিশ্চয়ই আলোচনা করছেন। আমি আইএসএফ প্রতিষ্ঠা করেছি ঠিকই কিন্তু নেতৃত্বের কোনও দায়িত্ব আমার কাঁধে রাখিনি। যাঁদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সেগুলো তাঁরাই আলোচনা করবেন, তাঁরাই বলতে পারবেন। সংযুক্ত মোর্চার ক্ষেত্রেও ফলাফল নিয়ে যাঁরা নেতৃত্ব আছেন তাঁরাই আলোচনা করছেন। তাঁরাই যা বলার বলবেন।”