আজ পৈলান জনসভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী সহ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কী বললেন দেখে নিন একনজরে

আজ পৈলান জনসভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী সহ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কী বললেন দেখে নিন একনজরে
আজ পৈলান জনসভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী সহ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কী বললেন দেখে নিন একনজরে / ছবি সৌজন্যেঃ মমতা ব্যানার্জি- ফাইল ছবি, অভিষেক ব্যানার্জি ছবি সৌজন্যে- ফেসবুক

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ আসন্ন বিধানসভা ভোটের আগে আজ দক্ষিন ২৪ পরগনা জেলার পৈলানে জনসভা করতে হাজির হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ যুব তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। অন্যদিকে রাজ্য সফরে আজ নামখানা ও কাকদ্বীপের সভায় হাজির হয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। আর অমিত শাহ সহ গেরুয়া শিবিরকে নিশানা করে আজ পৈলান থেকে কী বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ যুব তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, একনজরে দেখে নিন..

বিজেপিকে নিশানা করে আজ পৈলানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেন, বিজেপি যা ইচ্ছা তাই করছে। আগে নিজেদের মা-বাবার শংসাপত্র আছে কী না দেখুক, তারপর এনআরসি-এনপিআরের কথা বলবে বলবে তারা। এছাড়া তিনি বলেন, বাংলায় এসে বাংলার মানুষদের মিথ্যা কথা বলে শুধু। অনেক জায়গায় তো সাফ হয়েছে বিজেপি, এবার বাংলাতেও সাফ হবে তা ভাবতেও পারছে না তারা। অন্যদিকে আম্ফানের কথা তুলে বলেন, আম্ফানের সময় রাজ্যে এসে ঘুরে গেলেন, আর বললেন ১ হাজার কোটি টাকা দিয়েছেন। বাংলা থেকে কত কোটি নিয়ে যাচ্ছেন! আর ১ হাজার কোটি টাকা দেখাচ্ছেন বিজেপি। আজ পৈলান থেকে বিজেপিকে নান ভাবে কটাক্ষ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি।

অন্যদিকে আজ পৈলানে উপস্থিত ছিলেন অভিষেক ব্যানার্জি। বিজেপিকে নিশানা করে আজ পৈলানে বলেন, সোনার বাংলা গড়ার কথা বলছে, তাহলে এখনও সোনার ভারত, দিল্লি গড়তে পারেনি কেন! এমনকি বলেন, বাংলা কতটা জানে বিজেপি! মঞ্চের পিছনে ব্যানারে কী লেখা থাকে তা ই বলতে পারবে না। এছাড়া তিনি বলেন প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী, সাত বছরে ১৪ কোটি মানুষের চাকরি পাওয়ার কথা ছিল। কিছু কেউ বলতে পারবে না যে প্রধানমন্ত্রী চাকরি দিয়েছে। অন্যদিকে তিনি বলেন, পুরাতন বিজেপি কর্মীরা টোটো পাচ্ছেন না, কিন্তু চার্টার্ড বিমানে করে তৃণমূল নেতাদের নিয়ে যাচ্ছেন দিল্লি। এছাড়া তিনি আরও নানা কথায় তীব্র কটাক্ষ করেন বিজেপিকে।

প্রসঙ্গত রাজ্যের দৌড়গোড়ায় ২০২১ এর বিধানসভা ভোট। রাজ্যের শাসক দলে কে আধিপত্ত বিস্তার করবে তা নিয়ে চলছে রাজনৈতিক বিরোধ। রাজনৈতিক দলগুলি তাঁদের অবস্থান পাকাপক্ত করতে ইতিমধ্যেই আসরে নেমে পড়েছে। চলছে তৃণমূল-বিজেপি বিরোধ। যেকোন সভায় দুই দলের নেতারা একে অপরকে ক্রমাগত আক্রমণ করে চলেছেন। শেষ পর্যন্ত কে হাসবে শেষ হাসি তা দেখার জন্য অপেক্ষায় রাজ্যবাসী। বিধানসভার ভোটের ফলাফলেই জানা যাবে কে হবে বাংলার শাসক।

আরো পড়ুনঃ   ১৮ নয় বরং ২১ বছর অবধি নিতে হবে পুত্রের ভরণপোষণের দায়িত্ব! জানাল সুপ্রিম কোর্ট