সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক পদ পাওয়ার পরই আজ পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ সুব্রত বক্সির সঙ্গে দেখা করলেন অভিষেক

সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক পদ পাওয়ার পরই আজ পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ সুব্রত বক্সির সঙ্গে দেখা করলেন অভিষেক
সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক পদ পাওয়ার পরই আজ পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ সুব্রত বক্সির সঙ্গে দেখা করলেন অভিষেক

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ দলের সেকেন্ড ইন কম্যান্ড এর পদ পেয়েছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর আরও গুরুত্ব বাড়ল তৃণমূল কংগ্রেসে। গতকাল তাঁকে জাতীয় রাজনীতিতে আরও প্রাসঙ্গিক করতে সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক পদে বসালেন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দায়িত্ব বাড়ার পরই আজ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় দলের শীর্ষ নেতা পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ সুব্রত বক্সির সাথে দেখা করেন। এমনকি জানা গেছে, দলের জন্য প্রথম থেকে যারা লড়াই করে এসেছেন তাদের সক্লের সাথেই দেখা করবেন অভিষেক।

রবিবার দেড় ঘণ্টারও কিছু বেশি সময় পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের নাকতলার বাড়িতে ছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, দলের বর্ষীয়ান নেতার আশীর্বাদ নেন নবনিযুক্ত সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক। আগামীদিনে দল পরিচালনার রণকৌশল নিয়েও দু’জনের মধ্যে আলাপ আলোচনা হয়। তারপর বিকেলের দিকে তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সির বাড়িতেও যান অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপর সন্ধে ৮টায় যাবেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করতে।

অন্যদিকে আজকের সাক্ষাত প্রসঙ্গে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “অভিষেককে আমি ছোটবেলা থেকেই চিনি। আমার সঙ্গে সম্পর্ক অত্যন্ত ভালো। নতুন করে আশীর্বাদ নেওয়ার কিছু নেই। ওর সঙ্গে আমাদের আশীর্বাদ আছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পর অভিষেক এখন অন্যতম মুখ। সাংগঠনিক বিষয়ে অনেক কথা হয়েছে। ও দলকে শক্তিশালী করছে। “

শনিবার গুরু দায়িত্ব পেয়েই ট্যুইট করে নিজের প্রতিক্রিয়া জানান যুব নেতা। ট্যুইটারে অভিষেক লেখেন, “নতুন দায়িত্ব দেওয়ার জন্য আমি দলের কাছে কৃতজ্ঞ। হাজার বাধা থাকা সত্ত্বেও যাঁরা আমার সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করেছেন, যাঁরা বাংলাকে জিতিয়েছেন, দলের সেই সমস্ত সৈনিককে ধন্যবাদ।” এরই সাথে তিনি ধন্যবাদ জানিয়েছেন দলের বর্ষীয়ান অভিজ্ঞ নেতাদেরও। লিখেছেন, “দলের সমস্ত অভিজ্ঞ বর্ষীয়ান নেতাদের ধন্যবাদ। যাঁরা দুর্দিনে দলের পাশে ছিলেন। দলকে সবথেকে বেশি মূল্য দিয়েছেন।” এছাড়া নিজের নতুন দায়িত্ব পালন করা নিয়ে অভিষেক ট্যুইটে লিখেছেন, “আমি সকলকে কথা দিচ্ছি চেষ্টার কোনও ত্রুটি রাখব না। দেশের প্রতিটি প্রান্তে, প্রতিটি কোনায় দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বার্তা, কাজ পৌঁছে দেব।”