বাংলার একটা বুথেও পদ্ম ফুটবে না, চ্যালেঞ্জ অভিষেকের

বাংলার একটা বুথেও পদ্ম ফুটবে না, চ্যালেঞ্জ অভিষেকের
image source: file image

“বাংলার একটা বুথেও পদ্ম ফুটবে না। ২৫০ টি আসন পাবে তৃণমূল।” শনিবার দক্ষিণ ২৪ পরগণায় ঢোলাহাটের সভা থেকে এই দাবি করলেন ডায়মন্ড হারবারের তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এই সঙ্গে দলত্যাগীদেরও খোঁচা দেন তিনি।

এদিন অভিষেক বলেন, “অনেকেরই আজকাল তৃণমূলে দম বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। তখনই তাঁরা বিজেপির আইসিইউতে গিয়ে ঢুকছে।” তাঁর দাবি, ইডি-সিবিআইয়ের ভয়েই এই শিবিরবদলের হিড়িক। লাগাতার দলত্যাগ ভোটে কোনও প্রভাব ফেলবে না বলেই দাবি করেন সাংসদ।

এদিন ফের অমিত শাহ, কৈলাস বিজয়বর্গীয়দের বহিরাগত বলে কটাক্ষ করেন অভিষেক। ব্যাঙ্গাত্মক সুরে বলেন, “যাঁরা বিবেকানন্দ ঠাকুর বলেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মস্থান কোথায় জানেন না তাঁরা বাংলা দখলের চেষ্টা করছেন। কিন্তু তাতে কোনও লাভ হবে না।”

কিষান নিধি সম্মান প্রকল্প প্রসঙ্গেও এদিন বিজেপিকে একহাত নেন তৃণমূল সাংসদ। বলেন, “অমিত শাহ বলেছিলেন, ১৮ হাজার টাকা দেবেন চাষিদের। মানুষ কি গরু, ছাগল যে ১৮ হাজার টাকার বিনিময়ে বিক্রি হবে বিজেপির কাছে।”

অন্যদিকে অভিযোগ করে তিনী বলেন, “স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মতুয়াদের বিভ্রান্ত করছেন”। তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে বললেন, “আগামী ৫০ বছর বাংলার দায়িত্ব থাকবে তৃণমূলের হাতে।”

বিধানসভা নির্বাচন দোরগোড়ায়। ইতিমধ্যেই জোরকদমে প্রচার শুরু করেছে তৃণমূল-বিজেপি উভয়। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে সভা করছেন নেতারা। শনিবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার ঢোলাহাটে সভা করেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখান থেকে চাঁচাছোলা ভাষায় প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, বিজেপির নেতাদের আক্রমণ করেন তিনি।

অমিত শাহের ঠাকুরনগরের সভা ও সিএএ নিয়ে প্রতিশ্রুতি প্রসঙ্গে বলেন, “স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মতুয়াদের বিভ্রান্ত করছেন। সি এ এ আইনের রুলই তৈরী হয়নি। করোনার টিকাকরণের কাজ শেষ হতে ১০ বছর লাগবে। অর্থাৎ সিএএ এখন কোনওভাবেই কার্যকর হবে না। মতুয়াদের বলছে নাগতরিকত্ব দেবে।মফতুয়ারাতো নাগরিক। না হলে তাদের ভোটে তুমি কী করে জিতলে? বলছে অনুপ্রবেশকারীদের তাড়াবে।“

এরপরই চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে অভিষেক বলেন, “বাংলা থেকে অনুপ্রবেশকারীদের সরানোর হুমকি না দিয়ে অরুণাচলে যারা গ্রামে ঢুকে বসে আছে আগে তাদের সরাও।” বৃহস্পতিবার কোচবিহার ও ঠাকুরনগরে সভা করতে এসে দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেছেন, “বাংলা থেকে অনুপ্রবেশকারীদের তাড়াব। বাংলায় বিজেপি ক্ষমতায় এলে একটা পায়রাও উড়ে আসতে পারবে না।” এই প্রসঙ্গে শনিবার অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় অমিত শাহকে নাম করে চ্যালেঞ্জ জানান।

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন অমিত শাহের নাম করে বলেন, “ওরে আগে পারলে অরুণাচল প্রদেশে যারা ঢুকে বসে আছে, গালোয়ানে যারা ঢুকে বসে আছে তাদের তারাও। অরুণাচলে গ্রামের পর গ্রাম জুড়ে যারা বসে আছে তাদের পারলে তারাও। আমরা তো বলছি দেশের অখণ্ডতার প্রশ্নে আমরা পাকিস্তান, চীন যে-ই ভারতের ভূখণ্ড দখল করে আছে তাদের তাড়াতে হবে।পারলে সেটা করো।”

প্রসঙ্গত অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন যা বললেন এই একই কথা দীর্ঘদিন ধরে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী বলে আসছেন। কেন্দ্রের বিরুদ্ধে রাহুল গান্ধী একই কায়দায় বলেছেন নরেন্দ্র মোদীর সাহস থাকলে চীনের যে সেনারা ভারত ভূখণ্ড দখল করে বসে আছে তাদের আগে সরাক। আর শনিবার সেই একই কথা শোনা গেলো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের গলায়। তিনিও এই একই ইস্যুতে চ্যালেঞ্জ জানালেন অমিত শাহকে।