দুর্ঘটনার ক্ষতিপূরণ আসতে দেরি? আর সমস্যা নয়, নয়া প্রস্তাবে দ্রুত আসবে বিমার টাকা

দুর্ঘটনার ক্ষতিপূরণ আসতে দেরি? আর সমস্যা নয়, নয়া প্রস্তাবে দ্রুত আসবে বিমার টাকা
দুর্ঘটনার ক্ষতিপূরণ আসতে দেরি? আর সমস্যা নয়, নয়া প্রস্তাবে দ্রুত আসবে বিমার টাকা

কোনও দুর্ঘটনার পর ক্ষতিপূরণ পেতে বিমা করান জনসাধারণ। তবে অনেকক্ষেত্রেই সেই ক্ষতিপূরণের টাকা সময় মতো পান না সাধারণ মানুষ। ফলে সমস্যায় পড়তে হয় তাঁদের। এর সমাধানেই এবার নেওয়া হচ্ছে নয়া উদ্যোগ। কেন্দ্র সরকার এবং বিমা সংস্থাগুলি মিলিত উদ্যোগে মধ্যস্থতাকারীদের মাধ্যমে যাতে বিমার টাকার পাওয়ার বিষয়টি দ্রুততার সঙ্গে হয়, তা দেখা হচ্ছে।

ক্ষতিপূরণের টাকা দ্রুত দেওয়ার জন্য গত সপ্তাহে নির্দেশ জারি করেছিল সুপ্রিম কোর্ট। এরই প্রেক্ষিতে নেওয়া হয়েছে নতুন পদক্ষেপ। সেখানে বিমার টাকা পাওয়ার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৩ মাস সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি আগামী দিনে তা যাতে আরও দ্রুত হয় তা দেখা হচ্ছে। সূত্রের খবর, মোটর অ্যাক্সিডেন্ট ক্লেম ট্রাইবুনালে এখনও প্রচুর মামলা বকেয়া রয়েছে। প্রায় ৩ বছর ধরে চলছে এই সংক্রান্ত মামলা। প্রায় ৬৫০-এর কেস নিয়ে গত দু’দশক ধরে চলছে টালবাহানা।

এই বিষয়টি নিয়ে গত ২৬ অক্টোবর অ্যাডিশনাল সলিসিটর জেনারেল জয়ন্ত সুদ, জাস্টিস সঞ্জয় কিষান কৌল ও এমএম সুন্দরেশের বেঞ্চের সামনে একটি রিপোর্ট তৈরি পেশ করেছিলেন। সেখানে মোটর অ্যাক্সিডেন্ট ক্লেম নিয়ে তৈরি হওয়া উদ্বেগজনক পরিস্থিতির উল্লেখ রয়েছে। তা নিয়েই এবার বিমার ক্ষতিপূরণ পাওয়ার বিষয়টিতে গতি আনার তৎপরতা শুরু হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলি যাতে দ্রুত ক্ষতিপূরণ পায় সেই দিকটির দিকে কড়া নজর দেওয়া হবে। ।

ক্ষতিপূরণ সংক্রান্ত ওই রিপোর্টে এও জানানো হয়েছে, মধ্যস্থতাকারী সংস্থা ৩০ দিনের মধ্যে ক্ষতিপূরণ সংক্রান্ত সমস্ত রিপোর্ট পেশ করবে। আবেদনকারী অবশ্য রিপোর্টের সঙ্গে একমত নাও হতে পারেন। তবে আবেদনকারী সম্মতি জানালে মধ্যস্থতাকারীর রিপোর্ট অনুযায়ী দুপক্ষের মতামত নিয়ে অর্ডার পাস করা হবে। সেক্ষেত্রে মামলা বন্ধ করে দেওয়া হবে। আগামী ১৬ নভেম্বর এই সংক্রান্ত পরবর্তী শুনানি রয়েছে সুপ্রিম কোর্টে।