প্রবীণদের করোনা ভ্যাকসিন দেওয়া হবে ১ মার্চ থেকে, কীভাবে পাবেন এই ভ্যাকসিন? রইল বিস্তারিত

প্রবীণদের করোনা ভ্যাকসিন দেওয়া হবে ১ মার্চ থেকে, কীভাবে পাবেন এই ভ্যাকসিন? রইল বিস্তারিত
প্রবীণদের করোনা ভ্যাকসিন দেওয়া হবে ১ মার্চ থেকে, কীভাবে পাবেন এই ভ্যাকসিন? রইল বিস্তারিত / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ সম্প্রতি করোনা টিকা নিয়ে বড় ঘোষণা করা হয়েছে কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে। এবার বেসরকারি হাসপাতাল থেকেও অর্থের বিনিময়ে মিলবে করোনা টিকা। টিকা দেওয়া হবে প্রবীণদের। বুধবার এমনটাই ঘোষণা করেছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভেরেকর।

বুধবারের ঘোষণায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জানিয়েছিলেন, ১ মার্চ থেকে করোনার দ্বিতীয় দফার টিকাকরণ শুরু হচ্ছে। ১০ হাজার সরকারি এবং ২০ হাজার বেসরকারি হাসপাতালের মাধ্যমে দেওয়া হবে এই করোনার টিকা। সরকারি ক্ষেত্রে এই টিকা পাওয়া যাবে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে। তবে, বেসরকারি ক্ষেত্র থেকে এই টিকা নিতে গেলে দিতে হবে টাকা। সেই টাকার পরিমাণ আগামী দিন তিনেকের মধ্যে জানানো হবে বলেও বলা হয়েছিল।

আগামী ১ মার্চ এই পর্যায়ে টিকা পাবেন ষাটোর্ধ্ব এবং ৪৫ বছরের ঊর্ধ্বে থাকা ব্যক্তিরা, যাঁদের কো-মর্বিডিটি রয়েছে। উল্লেখ্য, করোনা টিকাকরণ দেওয়া শুরু হয়েছিল স্বাস্থ্যকর্মী, ডাক্তার, নার্স প্রভৃতি প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাদের দিয়ে। করোনা টিকা নিয়ে ঘোষণায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জানিয়েছিলেন, আপাতত সরকারি কেন্দ্রগুলিতে বিনামূল্যেই টিকাকরণ প্রক্রিয়া চলবে। তবে, বেসরকারি কেন্দ্র থেকে টিকা নিতে হলে, টাকা খরচ করতে হবে।

এই করোনা টিকা নিতে গেলে আপনি আগে থেকে কো-উইন অ্যাপের মাধ্যমে প্রি-রেজিস্ট্রেশন করাতে পারবেন। আবার টিকাকরণ কেন্দ্রে গিয়েও এই রেজিস্ট্রেশন করানো যাবে। সরকারি ক্ষেত্রে টিকা নিতে গেলে কোনও টাকা দিতে হবে না। কিন্তু বেসরকারি ক্ষেত্রে টিকা নিতে গেলে, সার্ভিস চার্জ বাবদ দিতে হবে ১০০ টাকা। এর সঙ্গে যোগ হবে ভ্যাকসিনের দাম।

জানা গিয়েছে, স্থানীয় কোন কেন্দ্রে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে, তা সরকারিভাবে প্রচার চালানো হবে। তাতে সরকারি কেন্দ্রের কথা জানতে পারবেন। বেসরকারি ক্ষেত্রে টিকার দাম নির্ধারণ করবে কেন্দ্র সরকার। হাসপাতালের সঙ্গে আলোচনা করেই ভ্যাকসিন নেওয়ার খরচ ঠিক করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ১৬ জানুয়ারি থেকে দেশজুড়ে কোভিড টিকাকরণ শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে ১ কোটি ২১ লক্ষ ৬৫ হাজার ৫৯৮ জন স্বাস্থ্যকর্মীকে করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে। টিকাকরণের গতি নির্ধারিত লক্ষের থেকে কম হলেও, অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেকটাই বেশি। এই পরিস্থিতিতে আম-নাগরিকদের টিকাকরণ শুরু করতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.