রাত পোহালেই খুলছে বিদ্যালয়! তৎপরতার সাথে চলছে চূড়ান্তকালীন প্রস্তুতি

রাত পোহালেই খুলছে বিদ্যালয়! তৎপরতার সাথে চলছে চূড়ান্তকালীন প্রস্তুতি/ নিজস্ব ছবি
রাত পোহালেই খুলছে বিদ্যালয়! তৎপরতার সাথে চলছে চূড়ান্তকালীন প্রস্তুতি/ নিজস্ব ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদনঃনদিয়াঃমলয় দে দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান। অবশেষে বিদ্যালয়ে পুনরায় পঠন পাঠন চালু হবার গ্রীন সিগন্যাল ! গত ২০২০ সালের ২১শে মার্চ স্বার্থপর অদৃশ্য করোনাদৈত্যর কারণে দীর্ঘ ১১ মাস পরে আগামীকাল অর্থাৎ ১২ই ফেব্রুয়ারি খুলতে চলেছে। সেই কারণেই বিশেষ কিছু ব্যবস্থা নেওয়ার সাথে, যুদ্ধকালীন তৎপরতায় লক্ষ্য করা গেল বিভিন্ন স্কুলগুলিতে । জারি করা হয়েছে একগুচ্ছ নিয়মাবলি । তবে এক নজরে সেগুলির দিকে আলোকপাত করার দরকার আমাদের প্রত্যেকের ।
১.নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত পঠন পাঠন প্রক্রিয়া চালু হতে চলেছে । দুই বা ততোধিক বিভাগে বিভাজিত হয়ে ক্লাস চলবে।
২.শিক্ষক শিক্ষিকা মন্ডলী থেকে শুরু করে ছাত্রছাত্রী এমনকি প্রতিটি নন টিচিং স্টাফদের ব্যাবহার করতে হবে মাস্ক । সমস্ত স্কুল পর্যাপ্ত পরিমাণে পরিচ্ছন্ন করন করতে হবে।
৩.প্রত্যেক পড়ুয়াকে মানতে হবে সামাজিক দূরত্ব । সেই কারণেই স্টুডেন্টরা বিদ্যালয়ে যাতায়াতের সময় ব্যাবহার করতে হবে ছাতা , যে পারস্পরিক দূরত্বকে মান্যতা দেবে । স্কুলে একে অন্যের জল খাওয়া যাবে না ।
৪. বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে খেলা বন্ধ । থাকছে সামাজিক স্লোগান লেখার প্রতিযোগিতা ও কুইজ কনটেস্ট।
৫.পড়ুয়াদের মধ্যে পঠন পাঠন সংক্রান্ত সামগ্রী ভাগাভাগি করার ওপর কড়া নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে । ছাত্রছাত্রীদের প্রাকটিক্যাল ও থিওরি উভয় ক্লাসই বলবৎ থাকছে ।

৬.বিদ্যালয়ে রাখতে হবে আইশোলেশন বিভাগ । তাছাড়াও কোনো স্টুডেন্টদের সর্দি , কাশি , জ্বর হলে তার স্কুলে না আসার জন্য নির্দেশিকা রয়েছে । বর্তমান প্রেক্ষাপটে কোনো ক্লাস যেন শিক্ষক বা শিক্ষিকা হীন না থাকে তার জন্যও বিশেষ নজরদারি থাকছে ।
৭. স্কুল খোলার আগে স্কুলের পরিচালন সমিতি, প্রধান শিক্ষকের সাথে জেলা শাসক ও প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ মিটিং আবশ্যিক এবং জেলা শাসকের পক্ষ থেকে স্কুল খোলার যাবতীয় নিয়মাবলী সম্পর্কে স্কুলকে অবগত করা হবে ।
৮. একাধিক পড়ুয়াকে মনিটর করা হতে পারে শ্রেণীকক্ষে। পড়ুয়াদের একাধিক ইউনিফর্ম ব্যাবহার করার ও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে । স্কুলে ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে হ্যান্ড সেক , আলিঙ্গন এর বিরুদ্ধে জারি রয়েছে বিধি নিষেধ ।

এছাড়াও স্কুল শিক্ষা দপ্তরের নির্দেশিকা রয়েছে ডি আই এবং এস আই নিয়মিত স্কুল পরিদর্শন করবেন এবং স্কুলে বসাতে হবে মেডিক্যাল ক্যাম্প । এছাড়া আরো বলা আছে বিদ্যালয়ে প্রবেশ ও প্রস্থানের সময় স্টুডেন্টদের ভিড় এড়িয়ে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা চল করতে হবে । বিশেষ প্রয়োজনে অভিভাবকরা পরামর্শ করতে পারবেন কোনো সংশ্লিষ্ট স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষা কর্মীদের সাথে ।

আরো পড়ুনঃ   বিধানসভা নির্বাচনে ৯২ টা আসন সুরক্ষিত করল কংগ্রেস