ফের ভূমিকম্প! গভীর রাতে অল্প সময়ের ব্যবধানে ৬ বার কেঁপে উঠল অসম!

ফের ভূমিকম্প! গভীর রাতে অল্প সময়ের ব্যবধানে ৬ বার কেঁপে উঠল অসম!
ফের ভূমিকম্প! গভীর রাতে অল্প সময়ের ব্যবধানে ৬ বার কেঁপে উঠল অসম!

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ আবারও ফিরে এল ভূমিকম্পের আতঙ্ক। বুধবার সকালে তীব্র ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে মুর্শিদাবাদ-সহ উত্তরবঙ্গের একাধিক জেলা। এই ভূমিকম্পের উৎসস্থল ছিল অসমের শোনিতপুর, ভূপৃষ্ঠ থেকে ২১.৪ কিলোমিটার নিচে। এই ভূমিকম্পের পর, ফের গভীররাতে অল্প সময়ের ব্যবধানে ৬ বার ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল অসম। এবারের কম্পনের উৎসস্থলও সেই অসমের শোনিতপুর।

ন্যাশনাল সেন্টার ফোর সিসমোলজি জানিয়েছে যে, রাত ১২ টার পর থেকে ধাপে ধাপে মোট ৬ বার ভূমিকম্প হয়েছে অসমের শোনিতপুরে। প্রথম ভূমিকম্পটি হয় রাত ১২টা বেজে ২৪ মিনিটে। রিখটার স্কেলে মাত্রা ছিল ২.৬। এরপর যথাক্রমে ১টা ১০, ১টা ২০, ১টা ৪১ ও ১টা ৫২ মিনিটে ভূমিকম্প হয়। রিখটার স্কেলে মাত্রা ছিল যথাক্রমে ২.৯, ৪.৬, ২.৭ ও ২.৩। রাত ২টো বেজে ২৮ মিনিটে আরও একবার ভূমিকম্প হয়। রিখটার স্কেলে যার মাত্রা ছিল ২.৭।

জানা গিয়েছে, অসমের তেজপুর থেকে ৩৮ কিলোমিটার পশ্চিম-উত্তর পশ্চিমে শেষ ভূমিকম্পটির উপকেন্দ্র ছিল। ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ১১ কিলোমিটার অন্দরে ধাক্কা মারে প্রথম তরঙ্গ। উল্লেখ্য, বুধবার সকালে তীব্র ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে মুর্শিদাবাদ-সহ উত্তরবঙ্গের একাধিক জেলা। ভূমিকম্পের তীব্রতা বেশি থাকায় স্বাভাবিকভাবেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন উত্তরবঙ্গের বাসিন্দারা।

বুধবার সকাল ৭ টা ৫১ মিনিটে মুর্শিদাবাদ, মালদহ, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি ও শিলিগুড়িতে কম্পন অনুভূত হয়। কম্পনের তীব্রতা এতোটাই বেশি ছিল যে, রীতিমতো ঘরবাড়ি কেঁপে ওঠে। বিপদের আঁচ পেয়ে বাসিন্দারা রাস্তায় বেরিয়ে পড়েন। যারা সেই সময় রাস্তায় ছিলেন, তাঁরা আতঙ্কে রাস্তায় ছোটাছুটি শুরু করেন। এই ভূমিকম্পের পর, প্রাথমিকভাবে জানা যায় যে, পরপর দুটি ভূমিকম্প হয়েছিল। প্রথম ভূমিকম্পের স্থায়িত্ব ছিল কয়েক সেকেন্ডের। রিখটার স্কেলে এই কম্পনের তীব্রতা ছিল ৬.৪। তাই তীব্রতাও যথেষ্টই ছিল।

এও জানা যায় যে, এই ভূমিকম্পের উৎসস্থল ছিল অসমের শোনিতপুর, ভূপৃষ্ঠ থেকে ২১.৪ কিলোমিটার নিচে। দ্বিতীয় ভূমিকম্পটি হয়েছে গুয়াহাটিতে। এই দ্বিতীয় কম্পনের মাত্রা আরও বেশি ছিল বলে সূত্রের। গুয়াহাটি থেকে ১১ কিলোমিটার উত্তর ও উত্তর-পূর্বে এই কম্পনের তীব্রতা বেশি ছিল বলে জানা যাচ্ছে। বহু জায়গা থেকেই ক্ষয়ক্ষতির খবর আসে। এদিকে কাল এই কম্পনের পর আফটার শকের প্রবণতা রয়েছে বলেই জানিয়েছিলেন ভূতত্ববিদরা।

কাল কম্পন অনুভূত হয়েছিল কলকাতাতেও। নিউটাউন-রাজারহাট অঞ্চলে বহুতলের আবাসিকরা কম্পন অনুভব করেন। আতঙ্কে তথ্য প্রযুক্তি কেন্দ্রের কর্মীরা রাস্তায় চলে আসেন। আতঙ্ক ছড়ায় একাধিক বহুতলের বাসিন্দাদের মধ্যে। তবে কলকাতায় কম্পনের মাত্রা কম ছিল। উল্লেখ্য, এর আগেও চলতি মাসেই ১৭ এপ্রিল উত্তরবঙ্গ জুড়ে ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছিল। তখনও উৎসস্থল ছিল অসম।

NCS এর মতে, অসমের ঐ এলাকা অতি ভূমিকম্পপ্রবণ অঞ্চলের মধ্যে পড়ে। ভারী ভারতীয় টেকটনিক প্লেটের উপরে ইউরেশিয়ান প্লেট রয়েছে। এই দুই প্লেটের সংঘর্ষের ফলে এতবার ভূমিকম্প হয়। আগামিদিনে আরও বড় ভূমিকম্পের আশঙ্কা একেবারে অস্বীকার করতে পারছেন না বিশেষজ্ঞরা। তাই আতঙ্ক থেকেই যাচ্ছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.