বৃহস্পতিবার, ১৯ মে, ২০২২

দীর্ঘ ৪০ বছরের প্রেম! কিন্তু বিয়ের আসরে পাত্র দেখে চোখ কপালে সবার! নিমেষে ভাইরাল ভিডিও

০২:৩৯ পিএম, জানুয়ারি ১২, ২০২২

দীর্ঘ ৪০ বছরের প্রেম! কিন্তু বিয়ের আসরে পাত্র দেখে চোখ কপালে সবার! নিমেষে ভাইরাল ভিডিও

কথায় বলে, বাস্তব কাহিনী কখনও গল্প কথাকেও হার মানিয়ে দেয়। সম্প্রতি সেরকমই আরেক কাণ্ড ঘটল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের লাস ভেগাসে। সেখানের বাসিন্দা ‘কিটেনকায়সারা' টানা ৪০ বছরের প্রেমপর্ব শেষে ধুমধাম করে সেরে ফেলেছেন বিয়ে। অনুষ্ঠানে আয়োজনেরও কমতি ছিল না। কিন্তু বিয়ের আসরে পাত্রকে দেখেই চোখ কপালে উঠেছে আমন্ত্রিতদের। কিটেনকায়সারার কাণ্ড দেখে হতবাক হয়ে গিয়েছেন সকলে।

আসলে যে পাত্রকে ওই মহিলা বিয়ে করেছেন সে যে কোনও মানুষই নয়! সেটি আসলে রঙ। স্পষ্ট করে বললে গোলাপি রঙকে বিয়ে করেছেন কিটেনকায়সারা। জানা গিয়েছে, গোলাপি রঙের সঙ্গে তাঁর দীর্ঘ ৪০ বছরের সখ্যতা৷ এতদিন ধরে কেবল গোলাপি শেডের বিভিন্ন পোশাকই পরে আসছেন তিনি। বছর দুই আগে এক শিশু তাঁকে গোলাপি রঙের পোশাক পরার জন্য ব্যঙ্গ করলে তখনই এই রঙকে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন কিটেনকায়সারা। এরপর সম্প্রতি ৪০ বছরের প্রণয়কে পরিণতি দেন তিনি।

https://www.instagram.com/kittenkaysera/p/CYUSeVqPxVN/?utm_medium=copy_link

জানা গিয়েছে, ১ জানুয়ারি গোলাপি পোশাক পরা একদল মানুষের সামনে গোলাপি রঙের কাডিলাকে বসে বিয়েটা সেরে ফেলেন বছর ছাপান্নের এই মহিলা। বলাই বাহুল্য যে বিয়ের অনুষ্ঠানস্থল থেকে শুরু করে পোশাক কিংবা আনুষাঙ্গিক জিনিসপত্র সব কিছুই ছিল গোলাপি রঙেরই। কিটেন পরেছিলেম গোলাপি গাউন, গোলাপি ফারের কোট ও গোলাপি টায়রা। লিপস্টিক থেকে শুরু করে গহনা, সবই ছিল গোলাপি রঙের। এমনকি তাঁর চুলেও ছিল গোলাপি রঙ। শুধু তাই নয়, বিয়ের অনুষ্ঠানে যেসব অতিথিরা আমন্ত্রিত ছিলেন, তাদেরও গোলাপি রঙ পরে আসার অনুরোধ জানিয়েছিলেন তিনি।

https://www.instagram.com/p/CYhDwcpprMl/

বিয়ের অনুষ্ঠানে গোলাপি রঙের সুবিশাল একটি কেকও কাটেন সারা। লাস ভেগাসের ইতিহাস সৃষ্টিকারী এই জাঁকজমকের বিয়ে ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোড়ন ফেলে দিয়েছে। ঝড়ের গতিতে ভাইরাল হয়েছে বিয়ের ছবি ও ভিডিও। সারার কাণ্ড দেখে চোখ কপালে উঠেছে নেটিজেনদের। উল্লেখ্য, পেশায় অভিনেত্রী সারাকে প্রায়ই দেখা যায় হলিউডের বিভিন্ন সিরিজ, টিভি শোতে। ইনস্টাগ্রামেও দারুণ জনপ্রিয় তিনি। তাঁর বিয়ের ছবি দেখে অনুরাগীরা অবশ্য বেশ খুশি। নিজের খুশিকে মর্যাদা দিতে তিনি যে কাজ করেছেন, সে জন্য সারাকে বাহবাও দিয়েছেন অনুরাগীরা।