করুণ পরিণতি! অসুস্থ মা-কে স্টেশনে ফেলে চলে গিয়েছিল মেয়ে, অবশেষে মুম্বইতে খোঁজ মিলল বৃদ্ধার!

করুণ পরিণতি! অসুস্থ মা-কে স্টেশনে ফেলে চলে গিয়েছিল মেয়ে, অবশেষে মুম্বইতে খোঁজ মিলল বৃদ্ধার!
করুণ পরিণতি! অসুস্থ মা-কে স্টেশনে ফেলে চলে গিয়েছিল মেয়ে, অবশেষে মুম্বইতে খোঁজ মিলল বৃদ্ধার!

নিজের গর্ভদায়িনী মাকে স্টেশনে ফেলে রেখে চলে গিয়েছিলেন ছোট মেয়ে৷ ট্রেনে চেপে অসুস্থ বৃদ্ধা গিয়ে পৌঁছেছিলেন মুম্বইতে। অবশেষে এক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন মারফত মুম্বই থেকে খোঁজ মিলল তাঁর। অসুস্থ মা-কে ফিরিয়ে আনার জন্য উদ্যোগ নিলেন বড় মেয়ে। তিনি এবং পরিবারের সদস্যরা এবার মুম্বই পাড়ি দিলেন।

জানা গিয়েছে, অসুস্থ বৃদ্ধাটির নাম সাবিত্রী দেবী। বয়স পঁচাত্তর বছর। তিনি ডায়াবেটিসের রোগী। বার্ধক্যজনিত অসুস্থতার কারণে প্রায় সবকিছুই ভুলে যান তিনি। কিছুই মনে থাকে না। হাওড়ার রামরাজাতলায় একমাত্র ছেলের সঙ্গে থাকতেন বৃদ্ধা৷ দুই মেয়েরই বিয়ে হয়ে গিয়েছে। বড় মেয়ে কল্যাণী থাকেন হুগলির রিষড়ায়। ছোট মেয়ে উত্তরপ্রদেশের বালিয়ার বাসিন্দা।

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, জানুয়ারি মাসে ছেলের সঙ্গে ছোট মেয়ের বাড়িতে যান সাবিত্রী দেবী। প্রায় মাসখানেক সেখানেই ছিলেন ওই বৃদ্ধা। কিন্তু অসুস্থ মাকে বেশিদিন রাখতে রাজি হননি ছোট মেয়ে। তাই বাড়ির সামনে স্টেশনের প্ল্যাটফর্মে মাকে বসিয়ে রেখে চলে যান তিনি। এরপর থেকেই সাবিত্রী দেবীর আর কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।

বড় মেয়ের দাবী, এরপর ফোনে বেশ কয়েকবার মায়ের খোঁজ করেছিলেন তিনি। কিন্তু তাঁকে জানানো হয়, বৃদ্ধাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। অবশেষে এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা মুম্বই থেকে উদ্ধার করে বৃদ্ধাকে। ট্রেনে চেপে নাকি মুম্বই পৌঁছে গিয়েছিলেন ওই বৃদ্ধা। শারীরিক অসুস্থতার কারণে তাঁকে হাসপাতালেও ভর্তি করে দেওয়া হয়েছিল।

এরপরই সাবিত্রী দেবীকে বাড়ি ফেরানোর উদ্যোগে খোঁজ খবর নিয়ে বড় মেয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়৷ ফোন এবং ভিডিও কলে মায়ের সঙ্গে কথাও বলেন কল্যাণী দেবী। তারপরই মাকে ফিরিয়ে আনতে মুম্বই পাড়ি দিলেন বড় মেয়ে। কথা দিলেন, মাকে সারাজীবন নিজের কাছে আগলে রাখবেন।