সোমবার, ১৫ আগস্ট, ২০২২

আইসক্রিম, লেবুজল বিক্রেতা অ্যানি আজ লাল বাতির গাড়ি চড়ে ঘুরছেন! রইলো তাঁর জীবনযুদ্ধের কাহিনী

১১:৫৮ এএম, জুন ২৮, ২০২১

আইসক্রিম, লেবুজল বিক্রেতা অ্যানি আজ লাল বাতির গাড়ি চড়ে ঘুরছেন! রইলো তাঁর জীবনযুদ্ধের কাহিনী

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ জীবনে ওঠা নামা সবই থাকে। খারাপ – ভালো সবকিছু মিলিয়েই জীবন। জীবনে যেমন খারাপ সময় আসে, তেমনি তা কাটিয়ে আবার ভালো সময়ও হাজির হয়ে থাকে। আর সেরকমই এক ঘটনা আমাদের সামনে উঠে এসেছে। একসময় যে রাস্তা দিয়ে আইসক্রিম, লেবুজল বিক্রি করতেন অ্যানি সিবা বর্তমানে সেই রাস্তা দিয়েই অ্যানির হুটার বাজানো লাল বাতির গাড়ি চলে।

প্রসঙ্গত অ্যানি সিবা হলেন কেরলের তিরুঅনন্তপুরমের বাসিন্দা। বয়স ৩১ বছর। বর্তমানে ভারকালা থানার মহিলা সাব ইনস্পেক্টর তিনি। অতীতের নানা কষ্টের ফলই হল অ্যানির বর্তমান জীবন। জানা গেছে, তিনি কলেজে পড়ার সময় প্রথম বর্ষে প্রেমে পরেন। আর প্রেমে বিভোর হয়ে ভালোবাসার মানুষের সাথে লিভ-ইন করার এক চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেন তিনি। এভাবেই একসঙ্গে থাকতে থাকতে গর্ভবতী হন অ্যানি। আর সেসময় তাঁকে ছেড়ে চলে যায় তাঁর প্রেমিক।

আর সেসময় তিনি অসহায় হয়ে পরেন। বাড়িতেও যেতে পারেন না, কারণ সেখানে মুখ দেখানোর সাহসও থাকে না তাঁর। কী করবেন, কোথায় থাকবেন কিছুই বুঝতে পারে না অ্যানি। এভাবেই কষ্টে দিন কাটে তাঁর। অবশেষে তিনি পুত্র সন্তানের জন্ম দেন। সন্তানকে নিয়ে বাপের বাড়ি গেলেও তাঁকে তাড়িয়ে দেয়। আর এরপরই এক অন্য যুদ্ধ শুরু হয় অ্যানির। একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে সন্তান ও নিজের পেট চালানোর জন্য অ্যানি ঠেলা গাড়ি করে আইসক্রিম, লেবুজল বিক্রি করতে শুর করেন। এমনকি মশলা, সাবান ইত্যাদির ব্যবসাও শুরু করেন তিনি।

আর এই ভাবেই টাকা জমিয়ে সন্তানকে মানুষ করার সাথে সাথে নিজের সমাজবিদ্যায় স্নাতক এর পড়াশোনাও শেষ করেন তিনি। তারপর অ্যানি পুলিসের পরীক্ষার জন্য কোচিং সেন্টারে ভর্তি হন ২০১৪ সালে। এরপর অ্যানি পুলিসের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন ২০১৬ সালে। চাকরি পাওয়ার পর ২০১৯ এ এসআই পদের পরীক্ষায় বসেন এবং ভাল ফলাফলও করেন তিনি। তারপরই ২০২১ সালের ২৫ শে জুন নিজের এলাকাতেই সাব-ইনস্পেক্টর পদে দায়িত্ব পান তিনি। উল্লেখ্য যে জায়গা থেকে তিনি জীবনের কঠিন যুদ্ধ শুরু করেছিলেন আজ সেই জায়গারই রক্ষক তিনি। তিনি খারাপ সময় কে জয় করে সাফল্য পেয়েছেন বলাই যায়।