মণিপুরে সেনা কনভয়ে প্রাণঘাতী হামলার পর এবার উদ্ধার বিপুল পরিমাণ M-79 গ্রেনেড

মণিপুরে সেনা কনভয়ে প্রাণঘাতী হামলার পর এবার উদ্ধার বিপুল পরিমাণ M-79 গ্রেনেড
মণিপুরে সেনা কনভয়ে প্রাণঘাতী হামলার পর এবার উদ্ধার বিপুল পরিমাণ M-79 গ্রেনেড

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ মাত্র কয়েকদিন আগেই মণিপুরে অসম রাইফেলসের কনভয়ে প্রাণঘাতী হামলা হয়েছিল। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই, এবার উত্তর-পূর্বের সেই রাজ্য থেকেই উদ্ধার হল বিপুল অস্ত্রভাণ্ডার। মাটির তলা থেকে এই বিশাল অস্ত্রভাণ্ডার দেখলে মনে হবে, কোনও বড় নাশকতার প্রস্তুতি চলছিল। অস্ত্রভাণ্ডার উদ্ধারের পর সেনার চোখ কপালে উঠেছে।

সেনার পক্ষ থেকে প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হচ্ছে যে, বড়সড় হামলার পরিকল্পনা ছিল বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের। পাশাপাশি এও মনে করা হচ্ছে যে, তারা চিনের থেকে সাহায্য পাচ্ছিল। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে মণিপুর পুলিশ এবং অসম রাইফেলসের ফুনড্রেই ব্যাটেলিয়ন যৌথভাবে এই অভিযান চালায়। সেই অভিযানে কাকচিং জেলার ওয়াবআগাই ইয়ানবি হাই স্কুলের সামনে মাটির তলা থেকে মেলে বিস্ফোরক। ২০ রাউন্ড এম-৭৯ গ্রেনেড ( M-79 grenade launcher) লঞ্চার উদ্ধার হয়। মায়ানমার সীমান্ত লাগোয়া এই জেলায় কীভাবে এত অস্ত্র এল, কারাই বা এসব মজুত করল, তা নিয়েই উঠছে প্রশ্ন। প্রাক্তন সেনা কর্তাদের পক্ষ থেকে সন্দেহ করা হচ্ছে, নতুন করে ফের একবার উত্তর-পূর্ব ভারতকে অশান্ত করার পরিকল্পনা করছে চিন। আর সেই কারণেই মায়ানমারের মাধ্যমে ঘুরপথে সীমান্ত লাগোয়া জেলাগুলিতে অস্ত্র পাচার করছে। বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনগুলিকে অস্ত্র সরবরাহ করছে। কিন্তু, এবার সেনা এবং পুলিশের যৌথ তৎপরতায় নাশকতার পরিকল্পনা বানচাল হল। এর জেরে স্বাভাবিকভাবেই অনেক বড় বিপদ কাটল। এমনটাই মনে করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ১৩ তারিখই মণিপুরের মায়ানমার সীমান্তে অসম রাইফেলসের কনভয়ে বড়সড় জঙ্গি হামলা ঘটে। সেই ঘটনায় এক কম্যান্ডিং অফিসার-সহ অন্তত ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে এখনও পর্যন্ত। এই হামলার দায় স্বীকার করেছে মণিপুরের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন মনিপুর পিপলস লিবারেশন আর্মি।