উৎসবের সময়ে বাড়তে পারে হাঁপানির সমস্যা, জেনে নিন কি করণীয়

উৎসবের সময়ে বাড়তে পারে হাঁপানির সমস্যা, জেনে নিন কি করণীয়
উৎসবের সময়ে বাড়তে পারে হাঁপানির সমস্যা, জেনে নিন কি করণীয়

কালীপূজা ও দিওয়ালির সময় বাইরে ধোঁয়ার পরিমান বেশি থাকে তাই এই সময় বাড়ির বাইরে যাওয়া এবং বাজি ফাটানো উচিত নয়। আর এই সকল বাজি থেকে নির্গত ধোঁয়ায় কার্বন মনোক্সাইড এবং সালফার ডাই অক্সাইড থাকে। এই পদার্থগুলি হাঁপানির রোগীদের জন্য খুবই ক্ষতিকারক। তাই বাড়িতে থাকুন সুস্থ থাকুন। আর কালীপুজোর দিন ঘরে এয়ার কন্ডিশন চালু রাখতে পারেন।

আর বাইরে বেরোনোর খুব প্রয়োজন হলে মুখে মাস্ক অবশ্যই পরুন। দূষণ বিরোধী অনেক মাস্ক পাওয়া যায়। এগুলো আপনাকে দূষণ থেকে রক্ষা করবে। আগে থেকেই এই রোগে আক্রান্ত হলে জরুরি ওষুধ, নেবুলাইজার এবং অন্যান্য ওষুধ সবসময় হাতের কাছে রাখুন।

এই সময় ওষুধ সময়মতো গ্রহণ করলে রক্ষা পেতে পারেন। আর পুজোর সময় বাড়ি পরিষ্কারের রীতি আছে। তবে, হাঁপানির রোগীরা ভুলেও ডাস্টিং-এর কাজ করবেন না। এতে সমস্যা বেড়ে যায়। ডাস্টিং করলে ফুসফুসে ধুলো ঢুকে হাঁপানি বাড়ে। যখনই আপনি অস্বস্তি বোধ করবেন তখনই গরম জলে ভাপ নিন।

আপনি যদি অনিয়মিত শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যায় ভোগেন তাহলে এতে খুবই উপকার পাবেন। ভাপ নিলে শ্বাসনালিতে জমে থাকা নোংরা বের হয়ে যায়। তাই রোজ ভাপ নিন এর ফলে সুস্থ থাকবেন। এই সময় খাবারের দিকেও বিশেষ নজর দিন। সঠিক খাদ্যাভ্যাস সব ধরনের রোগ থেকে সুস্থ রাখে। খাদ্যতালিকায় রাখুন ফল ও শাকসবজি যা আপনাকে আপনার স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে সাহায্য করতে পারে। রোজ পর্যাপ্ত পরিমাণে জল পান করুন। রোজ ঘুমাতে যাওয়ার আগে এক গ্লাস গরম জল পান করুন। এই পদ্ধতি হজমে সহায়ক এবং শ্বাসযন্ত্র থেকে ভেজাল পরিষ্কার করতে সহায়তা করবে।