অপেক্ষার অবসান! সময় পেলেন বাবুল সুপ্রিয়, মঙ্গলবার বড় সিদ্ধান্ত নিতে চলেছেন প্রাক্তন এই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী

অপেক্ষার অবসান! সময় পেলেন বাবুল সুপ্রিয়, মঙ্গলবার বড় সিদ্ধান্ত নিতে চলেছেন প্রাক্তন এই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী
অপেক্ষার অবসান! সময় পেলেন বাবুল সুপ্রিয়, মঙ্গলবার বড় সিদ্ধান্ত নিতে চলেছেন প্রাক্তন এই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ প্রকাশ্যে ঘোষণা করেছিলেন তাঁর রাজনীতি থেকে সন্ন্যাস নেওয়ার কথা। পাশাপাশি এও জানিয়েছিলেন যে, নির্দিষ্টভাবে একটাই দল এবং একটা বিশ্বাসেই তিনি বিশ্বাসী। যদিও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীপদ হারিয়ে, রাজনীতি থেকে বাবুলের সন্ন্যাস নেওয়ার সেই ঘোষণা বাস্তবে বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। বিজেপি ছেড়ে তিনি সম্প্রতি তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন।

এদিকে এখনও পর্যন্ত ঘোষণা না হলেও, তাঁকে দলের পক্ষ থেকে বড় দায়িত্বই দেওয়া হবে, সেটা স্পষ্ট। এমনকি এই কথা বাবুল নিজেও পরোক্ষে বুঝিয়ে দিয়েছেন। পাশাপাশি এও স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে, বিজেপি ছেড়ে তিনি ওই দলের সাংসদ পদ আঁকড়ে থাকবেন না। তাই লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লার কাছে সাক্ষাতের সময় চেয়েছিলেন। তা পেলেই, তিনি ইস্তফা দেবেন সাংসদ পদ থেকে, এমনটাই জানিয়েছিলেন। অবশেষে সেই সময় এল। সূত্রের খবর, আগামী মঙ্গলবার অর্থাৎ ১৯ অক্টোবর বাবুলকে সময় দিয়েছেন স্পিকার। ওই দিনই দিল্লি গিয়ে আসানসোলের সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দেবেন বাবুল সুপ্রিয়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বাবুল সুপ্রিয় যেদিন বিজেপি ছাড়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন, সেদিন থেকেই তাঁর তৃণমূলের যোগ দেওয়ার জল্পনা শুরু হয়ে যায়। তবে, সেই জল্পনাকে উড়িয়ে দিয়ে তিনি ফেসবুকে এক দীর্ঘ পোস্ট করে লেখেন, ‘অন্য কোনও দলে যাচ্ছি না। তৃণমূল, কংগ্রেস, সিপিএম, কোথাও নয়। একেবারে নিশ্চিত ভাবে বলছি। কেউ আমায় ডাকেনি, আমিও কোথাও যাচ্ছি না। আমি বরাবর একপক্ষের সমর্থক। চিরকাল মোহনবাগানকেই সমর্থন করে এসেছি। বাংলায় একমাত্র বিজেপিই করেছি।’

এখানেই শেষ নয়, বাবুল এমনও লিখেছিলেন, ‘সমাজসেবা করতে গেলে রাজনীতিতে না থেকেও করা যায়। নিজেকে একটু গুছিয়ে নিই আগে, তারপর…।’ তবে, বাবুল সুপ্রিয়র সেই কথা বাস্তবে পাল্টে যায়। তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে তৃণমূলে যোগ দেন বাবুল। সেই প্রত্যক্ষ রাজনিতিতেই ফিরে আসেন বাবুল। তবে এবার অন্য দলের পতাকা তলে।

বাবুল সুপ্রিয়কে নিয়ে একাধিকবার নানা প্রশ্ন তুলেছে বিজেপি। কেন আসানসোলের সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দিচ্ছেন না বাবুল? এই প্রশ্ন তুলেছিল বিজেপি একাধিকবার বাবুলের দল ছাড়ার পর। কিন্তু বাবুল সুপ্রিয় স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছিলেন যে, স্পিকারের সঙ্গে মুখোমুখি দেখা করেই ইস্তফা দেবেন তিনি। এই বিষয়কে ক্বেন্দ্র করে মাঝে বিতর্কের সৃষ্টি হলে, স্পিকারকে পাঠানো চিঠির প্রতিলিপি টুইটারে তুলে বাবুল লিখেছিলেন, ‘মাননীয় স্পিকারের উচ্চ কার্যালয়ে আমি সাক্ষাতের সময় চেয়ে আমার চিঠি পাঠাই। শ্রদ্বেয় স্যারের কার্যালয় থেকে সেই চিঠির একটি প্রাপ্তিস্বীকারও করা হয়েছে। আবারও একই অনুরোধ জানাচ্ছি। সাংসদ সৌগত রায়ও এই মর্মে একটি চিঠি দিয়েছেন।’ এই টুইটের মাধ্যমে তিনি স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন যে, স্পিকারের পক্ষ থেকে সাক্ষাতের সময় মেলেনি বলেই এখনও সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দিতে পারেননি তিনি।

অবশেষে বাবুল সুপ্রিয়র সেই অপেক্ষার অবসান ঘটতে চলেছে। সূত্রের খবর, ১৯ অক্টোবর তাঁকে সময় দিয়েছেন লোকসভার স্পিকার। তাই ওইদিন লোকসভার স্পিকারের সঙ্গে দেখা করে, সাংসদ পদ ছেড়ে দিতে চলেছেন বাবুল সুপ্রিয়।