ব্যাঙ্ককর্মীরা স্টাফ স্পেশ্যালে উঠতে পারবেন আজ থেকেই

ব্যাঙ্ককর্মীরা স্টাফ স্পেশ্যালে উঠতে পারবেন আজ থেকেই
ব্যাঙ্ককর্মীরা স্টাফ স্পেশ্যালে উঠতে পারবেন আজ থেকেই

অনেক অনুরোধের পর শেষ পর্যন্ত মিলেছে রেলের অনুমোদন। সেই মতই শুক্রবার থেকে ব্যাংক কর্মীরা স্টাফ স্পেশাল ট্রেন ছাড়ার অনুমতি পেয়েছেন। বেশ কিছুদিন আগেই রাজ্যের তরফ থেকে ব্যাংক কর্মীদের পরিবহনের জন্য স্পেশাল ট্রেনে ওঠার অনুমতি চেয়ে চিঠি দেয় রাজ্য। এর কিছুদিন পর অনুমতি দিয়ে রেল জানিয়েছিল মান্থলি কেটেই ব্যাংক কর্মীদের যাতায়াত করতে হবে। সেই মতই আজ থেকে ব্যাংক কর্মীরাও স্পেশাল ট্রেনের সওয়ার হতে পারছেন।

রাজ্যের তরফে রেলের কাছে ব্যাংক কর্মীদের স্টাফ স্পেশালে ওঠার অনুমতি চাইলে রেল পাল্টা রাজ্যকে প্রশ্ন করে সেক্ষেত্রে ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানো হবে কিনা? বা আদৌ কত ব্যাঙ্ক কর্মী ট্রেনে যাতায়াত করবেন। কিন্তু রাজ্যের তরফে কোনো উত্তর আসেনি বলেই জানিয়েছেন পূর্ব রেলের এজিএম। বৃহস্পতিবার স্টেশন ম্যানেজার টিটি সহ বিভিন্ন বিভাগের আধিকারিকদের কাছেপূর্ব রেলের ডিভিশনাল কমার্শিয়াল ম্যানেজার এই অনুমতি পাঠিয়েছেন।

অন্যদিকে, সংক্রমণ খানিকটা নিম্নমুখী হতেই আবার কবে থেকে রেল পরিষেবা চালু করা হবে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। এই বিষয়ে রেল কিছু সদর্থক ইঙ্গিত দিতে না পারলেও রাজ্য সরকারের কোর্টেই বল ঠেলে দিয়েছে।

সম্প্রতি এক সাংবাদিক বৈঠকে রেল বোর্ডের চেয়ারম্যান সুনীত শর্মা জানান, ভোট মিটে যাওয়ার পর থেকেই রাজ্য লোকাল ট্রেন বন্ধ করতে চেয়ে আবেদন জানিয়েছিল। রেল তা মেনেও নিয়েছে। বর্তমানে রেল ফের পরিষেবা চালু করার জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত। রাজ্য সরকার যে দিন বলবে, সে দিন থেকেই পরিষেবা শুরু করা যাবে। ট্রেন পরিষেবা চালু হলেও তা সম্পূর্ণ করোনা বিধি মেনেই চালানো হবে বলে স্পষ্ট করে দিয়েছে রেল বোর্ড।

অন্যদিকে,  বৈঠকে সংশ্লিষ্ট বিভাগের সব জেনারেল ম্যানেজারদের নির্দেশ দিয়ে বলা হয়েছে, সংক্রমণের হার কমতে শুরু করায় একাধিক রাজ্য দূরপাল্লার ট্রেনের পরিষেবা স্বাভাবিক করার পরিকল্পনা করছে। যে কোনও সময় ট্রেন চালানোর নির্দেশ আসতে পারে। তাই নির্দেশ এলেই যাতে ট্রেন চালানো যায় অগ্রিম সেই প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে।