বাঙালি কন্যের বিদেশ জয়! ব্রিটেনের সি বি ই পুরস্কারে ভূষিতা হলেন বাংলার বাসবী ভট্টাচার্য ফ্রেজার

বাঙালি কন্যের বিদেশ জয়! ব্রিটেনের সি বি ই পুরস্কারে ভূষিতা হলেন বাংলার বাসবী ভট্টাচার্য ফ্রেজার
বাঙালি কন্যের বিদেশ জয়! ব্রিটেনের সি বি ই পুরস্কারে ভূষিতা হলেন বাংলার বাসবী ভট্টাচার্য ফ্রেজার

“ভারত আবার জগৎ সভার শ্রেষ্ঠ আসন লবে…”! বিশ্বের দরবারে ভারতের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ হয়েছে বারবার। পিছিয়ে নেই বাংলাও। বিদেশে বাংলার মুখ উজ্জ্বল করেছেন বহু বাঙালিই। এবার সেই তালিকায় নাম লেখালেন আরেক বঙ্গ তনয়া। তিনি বাসবী ভট্টাচার্য ফ্রেজার। সম্প্রতি ব্রিটেনের সি বি ই পুরস্কারে ভূষিতা হলেন এই বাঙালি লেখিকা ওরফে শিক্ষাবিদ। স্কটল্যান্ডের শিক্ষা এবং সংস্কৃতিতে বিশেষ অবদান রাখার জন্যই পেলেন এই সম্মান।

বাসবীর জন্ম খাস কলকাতাতেই। পড়াশোনা কলকাতার লেডি বেব্রোর্ন কলেজ থেকে। কর্ম সূত্রে বেশ কিছু বছর আগে বিদেশে পাড়ি দেন তিনি। বর্তমানে স্কটল্যান্ডের স্কটিশ সেন্টার অফ টেগোর স্টাডিজের কর্ণধার। ডান্ডি বিশ্ব বিদ্যালয়ের রয়্যাল লিটেরারি ফান্ড ফেলো, এডিনবরার সেন্টার ফর সাউথ এশিয়ান স্টাডিজের সাম্মানিক ফেলোও তিনি। এছাড়াও স্কটিশ পোয়েট্রি অ্যাসোসিয়েশনে সদস্যা বাসবী। সম্পাদনা করেন ‘গীতাঞ্জলি এন্ড বিয়ন্ড’ ই পত্রিকাটিও।

স্কটল্যান্ডেরই অধ্যাপক নীল ফ্রেজারের সঙ্গে বিবাহ করে বর্তমানে সেখানেই বসবাস করেন বাসবী। তবে এক মুহূর্তের জন্যও ভোলেননি নিজের শিকড়। তাই বিদেশে থেকেও বাংলা ভাষায় বহু বই লিখেছেন। এছাড়াও ফ্রম গঙ্গা টু দ্য টে, স্টোরিজ ফ্রম বেঙ্গল ইত্যাদি বইতেও মিলিয়েছেন বাংলা এবং স্কটল্যান্ডের সংস্কৃতি। রবীন্দ্রনাথ নাথ ঠাকুরকে নিয়েও গ্রন্থ রচনা করেছেন বাসবী। ২০০৫ সালে জিতেছেন কবিতা প্যারাডিজমের পুরস্কারও। আক্ষরিক অর্থেই বলা যেতে পারে, বিশ্বের দরবারে বাংলার মুখ প্রকৃত অর্থেই উজ্জ্বল করেছেন বঙ্গতনয়া বাসবী।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.