‘বাংলায় চাকরিতে অগ্রাধিকার পাবেন স্থানীয়রা, বাংলা ভাষা জানাও আবশ্যিক’! বললেন মুখ্যমন্ত্রী

‘বাংলায় চাকরিতে অগ্রাধিকার পাবেন স্থানীয়রা, বাংলা ভাষা জানাও আবশ্যিক’! বললেন মুখ্যমন্ত্রী
‘বাংলায় চাকরিতে অগ্রাধিকার পাবেন স্থানীয়রা, বাংলা ভাষা জানাও আবশ্যিক’! বললেন মুখ্যমন্ত্রী

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাজ্য সরকারের চাকরির ক্ষেত্রে স্থানীয়দের অগ্রাধিকার দিতে হবে। এর সঙ্গে বাংলায় সরকারি চাকরির জন্য বাংলা ভাষা জানা। মালদহে আজ প্রশাসনিক বৈঠকে এমনটাই জানিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্য সচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদীকে বিষয়টি খতিয়ে দেখারও নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

প্রযাই অভিযোগ ওঠে যে, প্রশাসনের বিভিন্ন পদে কর্মরত বহু আধিকারিকই বাংলা ভাষা তেমন জানেন না। ফলে মাঠে-ময়দানে কাজ করতে বা স্থানীয়দের মতামত জানতে তাঁদের সমস্যা হয়। এর ফল স্বরূপ পরিস্থিতি জটিল হয় অনেক সময়। তাই এবার সমস্যা সমাধানে উদ্যোগী হলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী। সন্ধান দিলেন সমাধান সূত্রের। কর্মসংস্থানের সময় যেন সেই রাজ্যের লোকেরাই চাকরি পান সেদিকটি তুলে ধরেন তিনি।

বুধবার অর্থাৎ আজ মালদহের প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, কর্মসংস্থানের সময় যেন রাজ্যের লোকেরা আগে চাকরি পান। ‘আমি সব রাজ্যের জন্য বলছি। বাংলা হলে বাংলা রাজ্যের জন্য। বাংলায় যাঁরাই বাস করুন। ভাষায় তিনি রাজবংশী হতে পারেন, কামতাপুরি হতে পারেন। আবার হিন্দি হতে পারে, আমার কোনও আপত্তি নেই। বাংলা ভাষাটা জানতে হবে। বাংলাটা তাঁর ঠিকানা হতে হবে। বিহারে বিহারের লোকেরা পাবেন। নাহলে বিহারের লোকেরা বিহারের সরকারকে ধরবেন। উত্তরপ্রদেশে উত্তরপ্রদেশের লোকেরা পাবেন। নিশ্চয়ই পাবেন। সব রাজ্যেই সেই রাজ্যের ছেলেমেয়েরা যেন কর্মসৃষ্টিতে কর্ম পান।’

তবে এই ঘোষণা, কেন্দ্রীয় সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে নয়, শুধু রাজ্যের চাকরির ক্ষেত্রেই কার্যকরী হতে পারে বলে সাফ জানিয়েদিয়েছেন মমতা। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রাজ্য সার্ভিসের ক্ষেত্রে যে কমিশন আছে, সেখানে রাজ্যের অন্য জায়গা থেকে এসে ভালো নম্বর থাকায় কেউ চাকরি পেয়ে গেলেন। কিন্তু স্থানীয় ছেলেমেয়েরা পেলেন না। কারণ তাঁর থেকে নম্বরটা কম। ফলে ভিন রাজ্যের প্রার্থী যখন সরকারের কোনও জায়গায় গিয়ে কাজ করছেন তখন কিন্তু তিনি স্থানীয় ভাষাটা জানেন না। আর এতেই অসুবিধা হচ্ছে।’

আজ ছিল মালদহ, মুর্শিদাবাদের প্রশাসনিক বৈঠক। সেখানেই উত্তরবঙ্গে কর্মসংস্থান তৈরি এবং বিনিয়োগ টানতে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দেন মুখ্যমন্ত্রী। সরব হন কেন্দ্রের বঞ্চনা নিয়েও। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কেন্দ্র সবসময় আমাদের বঞ্চনা করে। তার পরেও বাংলা এগিয়ে গিয়েছে।’