অবশেষে মিলল সুবিচার! স্কুলে ১১ বছরের ছাত্রীকে লাগাতার ধর্ষণে অভিযুক্ত শিক্ষকের ফাঁসির আদেশ আদালতের

অবশেষে মিলল সুবিচার! স্কুলে ১১ বছরের ছাত্রীকে লাগাতার ধর্ষণে অভিযুক্ত শিক্ষকের ফাঁসির আদেশ আদালতের
অবশেষে মিলল সুবিচার! স্কুলে ১১ বছরের ছাত্রীকে লাগাতার ধর্ষণে অভিযুক্ত শিক্ষকের ফাঁসির আদেশ আদালতের / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ স্কুলের মধ্যে বছর ১১-র পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে লাগাতার ধর্ষণ করার জেরে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে সে। সেই ঘটনার বছর দুই পরে, অবশেষে মিলল সুবিচার। সুবিচার পেল সেই নির্যাতিতা ছাত্রী।

মঙ্গলবার বিহারের এক আদালত বিহারের ওই স্কুলের অধ্যক্ষের মৃত্যুদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছে। এর সঙ্গে ধার্য করা হয়েছে বিপুল অংকের টাকা, জরিমানা স্বরূপ। ঘটনাটা ২০১৮ সালের। অভিযুক্ত এক শিক্ষক অভিষেক কুমার ওই ছাত্রীকে স্কুলের প্রিন্সিপালের কাছে পাঠায়। ওই ছাত্রীকে শিক্ষক বলে, প্রিন্সিপাল তার খাতা পরীক্ষা করছে। এরপর প্রিন্সিপালের ঘরে গেলে, তার উপর যৌন নির্যাতন চালানো হয়। এই ঘটনা একবার নয়, ৬ মাসে ৬ বার একই ঘটনা ঘটে।

মাস ছয় পর, ওই ছাত্রী আচমকাই একদিন বমি করতে শুরু করে। তাকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হলে, যৌন অত্যাচারের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। জানা যায় যে, ছাত্রীটি অন্ত্বঃসত্তা হয়ে পড়েছে। এরপর আদালতের অনুমতি নিয়ে ওই নাবালিকার গর্ভপাত করা হয়।

নির্যাতিতার পিতা পেশায় একজন দিনমজুর। তিনি ২০১৮ ওই ঘটনার কথা জানতে পেরে, পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ পাওয়ার পরই, ওই দুই অভিযুক্ত শিক্ষকে গ্রেফতার করা হয়। সেই মামলারই রায়দান করা হল।

অবশেষে এই মামলায় অভিযুক্ত ওই দুই শিক্ষক দোষী প্রমাণিত হয়েছেন। দুজনেরই শাস্তি ঘোষণা করেন অতিরিক্ত জেলা জজ আওধেশ কুমার। তিনি জানিয়েছেন, এই মামলার গতিপ্রকৃতি ও অপরাধের গভীরতা বিচার করে, মৃত্যুদণ্ড দেওয়া ছাড়া আর কোনও শাস্তি দেওয়া যায় না। এদিন রায়ে বিচারক অভিযুক্ত প্রিন্সিপালের মৃত্যুদণ্ড এবং ১ লক্ষ টাকা জরিমানার নির্দেশ দেন। পাশাপাশি অভিযুক্ত শিক্ষক অভিষেক কুমারের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা হয়েছে। এই জরিমানার টাকা সরাসরি পাবে নির্যাতিতা নাবালিকার পরিবার।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.