খোয়াই কাণ্ডে জোর ধাক্কা খেল বিপ্লব দেবের সরকার‍! আদালতের রায়ে স্বস্তিতে তৃণমূল

খোয়াই কাণ্ডে জোর ধাক্কা খেল বিপ্লব দেবের সরকার‍! আদালতের রায়ে স্বস্তিতে তৃণমূল
খোয়াই কাণ্ডে জোর ধাক্কা খেল বিপ্লব দেবের সরকার‍! আদালতের রায়ে স্বস্তিতে তৃণমূল

খোয়াই কাণ্ডে জোর ধাক্কা বিপ্লব দেবের প্রশাসনের। বৃহস্পতিবার ত্রিপুরা হাইকোর্টের তরফে জানানো হল, এই মামলায় নতুন করে কাউকে আর নোটিশ দেওয়া হবে না। গোটা বিষয় নিয়ে পুজোর পরেই আলোচনা হবে৷ বলাই বাহুল্য, আদালতের এই রায়ে কিছুটা স্বস্তিতে তৃণমূল কংগ্রেস।

উল্লেখ্য, খোয়াই থানায় সরকারি কাজে বাধা দিচ্ছে তৃণমূল। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, কুণাল ঘোষ-সহ তৃণমূল নেতাদের উপর অভিযোগের তীর নিশানা করা হয়েছিল। এই অভিযোগকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েই ত্রিপুরা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেছিল তৃণমূলের নেতৃত্ব। বলা হয়েছিল, অভিষেক-কুণাল সহ তৃণমূল নেতাদের মিথ্যে মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে। সেই মামলায় ত্রিপুরার বিপ্লব দেবের সরকারের তরফেও আদালতে জানানো হয়েছিল যে, তদন্ত শেষ হয়ে গিয়েছে।

তবে সম্প্রতি ফের তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষকে থানায় ডেকে পাঠায় ত্রিপুরা পুলিশ। তলবের ১০ দিনের মধ্যে কুণাল ঘোষকে হাজিরা দিতে বলা হয়েছিল৷ কুণাল জানিয়েছিলেন ৩ দিনের মধ্যে হাজিরা দেবেন৷ রবিবার রাতে খোয়াই থানার IO-কে ফোন করেন তৃণমূলের মুখপাত্র৷ জানান মঙ্গলবার হাজিরা দিতে যাবেন। কথা মতো, মঙ্গলবারই সকালে আগরতলার NCC থানায় যান কুণাল ঘোষ। তবে ঘণ্টাখানেক পরে সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়লে সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে ILS হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

সেই ঘটনার প্রেক্ষিতেই ফের একবার আদালতের দারস্থ হয় তৃণমূল। এরপরই বৃহস্পতিবার ত্রিপুরা হাই কোর্ট সাফ জানিয়ে দেয়, পুজোর পরই এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হবে। যাবতীয় অভিযোগ খতিয়ে দেখা হবে। তার আগে নতুন করে কাউকে নোটিশ পাঠানো যাবে না।