‘সংসদে কি মিথ্যে বলেছিলেন?’ নুসরতকে প্রশ্ন ছুঁড়লেন বিজেপির অমিত মালব্য! পাল্টা জবাব তৃনমূলের

'সংসদে কি মিথ্যে বলেছিলেন?' নুসরতকে প্রশ্ন ছুঁড়লেন বিজেপির অমিত মালব্য! পাল্টা জবাব তৃনমূলের
'সংসদে কি মিথ্যে বলেছিলেন?' নুসরতকে প্রশ্ন ছুঁড়লেন বিজেপির অমিত মালব্য! পাল্টা জবাব তৃনমূলের

নিখিল জৈন-নুসরত জাহান সম্পর্ক নিয়ে ইতিমধ্যেই বেশ জলঘোলা হয়েছে। সেই প্রসঙ্গে গতকাল বিবৃতি দিয়ে নুসরত জানিয়েছেন, নিখিলের সঙ্গে তাঁর কোনও বৈবাহিক সম্পর্ক নেই৷ তার জেরেই এবার অভিনেত্রীর দিকে আক্রমণের সুর চড়াল বিজেপি৷ বিজেপির আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য ট্যুইটে কড়া ভাষায় কটাক্ষ করেন নুসরতকে। তারপরই পালটা জবাব দিতে দেখা যায় তৃনমূলকেও।

এদিন ট্যুইটে নুসরতের সংসদে শপথ নেওয়ার একটি ভিডিও পোস্ট করে অমিত প্রশ্ন তোলেন, “তৃণমূল সাংসদ নুসরত জাহান রুহি জৈনের ব্যক্তিগত জীবন, তিনি কাকে বিয়ে করেছেন বা কার সঙ্গে থাকছেন, তা নিয়ে কারোরই কোনও মাথা ব্যথা থাকার কথা নয়। কিন্তু তিনি একজন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। সংসদের রেকর্ডে উল্লেখ করা রয়েছে তাঁর স্বামী নিখিল জৈন। সংসদে দাঁড়িয়ে তিনি কি তবে মিথ্যে বলেছিলেন?” এরই পালটা জবাব দিল তৃণমূল। এদিন বিজেপিকে লক্ষ করে দলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ এই বিষয়ে পাল্টা বলেন, “কাচের ঘরে বসে ঢিল ছুঁড়বেন না। গুজরাতের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর অতীতের হলফনামা দেখে তারপর মন্তব্য করুন।”

প্রসঙ্গত, গতকালই বিবৃতিতে নুসরত দাবী করেছেন, “নিখিলের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়নি। আমাদের কোনও বৈবাহিক সম্পর্কই নেই। আমার দুজন লিভ-ইনে ছিলাম। শুধুমাত্র সহবাস করতাম। তাই বিচ্ছেদের প্রশ্নই উঠছে না। পাশাপাশি তুরস্কে দু’জনের বিবাহ অনুষ্ঠান প্রসঙ্গে অভিনেত্রী জানান, “তুরস্কের বিবাহ আইন মতে ওই বিয়ে অবৈধ। হিন্দু-মুসলিম বিয়ের ক্ষেত্রে বিশেষ বিবাহ আইন অনুযায়ী আমাদের বিয়ের কোনও রেজিস্ট্রেশনও হয়নি। ফলে সেই বিয়ে আইনত সিদ্ধ নয়। তাই আইনত বিচ্ছেদের প্রসঙ্গও আসছে না।”

এদিকে এই প্রসঙ্গে মুখ খোলেন নুসরতের স্বামী নিখিল জৈনও। গতকালই সংবাদমাধ্যমে নিখিল জানান, “আমি যেরকম পরিবারের ছেলে সেখানে আমার কাছে বিয়ে মানে বিয়েই৷ আমি যা করেছি বিশ্বাস থেকে করেছি। সবটাই মনটাই থেকে করেছি। আমি বিয়ে করেছি এবং বিয়ের পর থেকেই নুসরতের কাছে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ছিলাম। আমরা একসঙ্গে স্বামী-স্ত্রীর মতোই থাকতাম।” তবে এখন যে আর তাঁরা একসঙ্গে থাকতে চান না সে বিষয়েও জানান দেন তিনি। কোর্টে সে কারণও জানিয়েছেন বলে দাবী করেছেন নিখিল।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালে তুরস্কের বোদরুমে জাঁকজমক অনুষ্ঠান করে বিয়ে সারেন নুসরত জাহান ও নিখিল জৈন। সেখান থেকে ফিরে কলকাতার আইটিসি হোটেলে তাঁদের রিসেপশন পার্টিও দেওয়া হয়েছিল। বিয়ের পর নিজেকে নুসরত জাহান রুহি জৈন নামেই পরিচয় দিতেন অভিনেত্রী। শাঁখা-সিঁদুর পরে বাঙালি বধূর সাজে সাংসদ হিসেবে শপথ নিতেও দেখা গিয়েছিল তাঁকে। এমনকি নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটেও দেখাচ্ছে অভিনেত্রী বিবাহিত৷ বিয়ের তারিখ হিসেবে ২০১৯ সালের ১৯ জুন তারিখেরও উল্লেখ রয়েছে। স্বামীর নাম দেখাচ্ছে নিখিল জৈন। এই বিষয়টিকে মুখ্য হাতিয়ার বানিয়েই অমিত মালব্যের ওই সাম্প্রতিক ট্যুইট।