নির্বাচন ঘিরে উত্তপ্ত রাজ্য-রাজনীতি! এবার তফসিলি ভোট ব্যাংকে বিশেষ নজর গেরুয়া শিবিরের

নির্বাচন ঘিরে উত্তপ্ত রাজ্য-রাজনীতি! এবার তফসিলি ভোট ব্যাংকে বিশেষ নজর গেরুয়া শিবিরের
নির্বাচন ঘিরে উত্তপ্ত রাজ্য-রাজনীতি! এবার তফসিলি ভোট ব্যাংকে বিশেষ নজর গেরুয়া শিবিরের

নিজস্ব প্রতিবেদনঃ রাজ্যে বাকি আরও চার দফার ভোট। এই ভোটে তফসিলি জাতির জন্য সংরক্ষিত ৩৭টি আসন। আর এই আসনেই আপাতত নজর বিজেপির। তাই বাকি শেষ চার দফার ভোটে তফসিলি ভোট-ব্যাংকে বিশেষ নজর গেরুয়া শিবিরের। ইতিমধ্যেই তফসিলিদের পাশে থাকার বার্তা দিয়ে প্রচারও চালাচ্ছে তারা।

বাকি চার দফায় ধূপগুড়ি, ময়নাগুড়ি, জলপাইগুড়ি, রাজগঞ্জ, কালিয়াগঞ্জ, মাটিগাড়া-নকশালবাড়ি, হেমতাবাদ, কুশমণ্ডি, গঙ্গারামপুর, গাজোল, মালদহ, নবগ্রাম, খড়গ্রাম, বড়ঞা, কৃষ্ণগঞ্জ, রানাঘাট উত্তর-পূর্ব, রানাঘাট দক্ষিণ, কল্যাণী, হরিণঘাটা, বাগদা, বনগাঁ উত্তর ও দক্ষিণ, গাইঘাটা, স্বরূপনগর, মিনাখাঁ, হিঙ্গলগঞ্জ, গোসাবা, খণ্ডঘোষ, রায়না, জামালপুর, কালনা, বর্ধমান উত্তর, আউশগ্রাম, গলসি, দুবরাজপুর, নানুর ও সাঁইথিয়া এই ৩৭ টি তপশিলি আসনে ভোট হবে।

এদিকে লোকসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর দেখা গেছে, এই ভোট বাকি থাকা ৩৭ টি আসনের মধ্যে ২১টি আসনে এগিয়ে আছে বিজেপি। সেখানে তৃণমূল এগিয়ে রয়েছে ১৫টি আসনে। কংগ্রেস এগিয়ে মাত্র ১টিতে। অন্যদিকে, তফসিলি উপজাতির জন্য সংরক্ষিত ভোট বাকি থাকা ৬টি আসনের মধ্যে বিজেপি এগিয়ে রয়েছে ৫টিতে। তৃণমূল ১টি আসনে এগিয়ে।

লোকসভার ভোটের ফলাফলে ভরসা করেই ফের বিজেপি নেতারা বিভিন্ন সভা-সমাবেশে তফসিলি-দলিত সমাজের কথা তুলে ধরছে। ‘আর নয় তফসিলিদের প্রতি অন্যায়’ এই হ্যাশট্যাগে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচারও শুরু হয়েছে। তবে শেষ হাসি কে হাসবে তা জানা যাবে ২ রা মে। বাংলার শাসক দলে কারা আধিপত্ত বিস্তার করবে তা নিয়ে অপেক্ষায় রাজনৈতিক মহল সহ জনগণ।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.