“সাক্ষরদেরও শিক্ষিত হওয়া দরকার,” মাইক্রোসফট সিইও কে আক্রমন বিজেপি সাংসদের

Image source: Google

বিশেষ প্রতিবেদনঃ “সাক্ষরদেরও শিক্ষিত হওয়া দরকার।“ বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের ‘গুলি করার’ মন্তব্যের পর ট্যুইট করে মাইক্রোসফট কর্তাকে এবার আক্রমন শানালেন বিজেপি নেত্রী মীনাক্ষী লেখি। সি এ এ এর বিরোধীতায় নামা সকলকেই একধার থেকে তোপ দেগেছে বিজেপি। এবার সেই তালিকা থেকে বাদ পড়লেননা মাইক্রোসফট সিইও সত্য নাদেল্লা।

সোমবার নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতা করে মাইক্রোসফট সিইও বলেন, “যা হচ্ছে তা খুব খারাপ, খুবই দুঃখের। আমি দেখতে চাই, ভারতে একজন বাংলাদেশী অভিবাসী ইনফোসিসের সিইও হচ্ছেন বা ইউনিকর্নের মতো স্টার্ট অ্যাপ খুলছেন।“ সিএএ এর প্রতিবাদে সারা দেশে যখন বিক্ষোভ চলছে ঠিক সেই মুহূর্তে নাদেল্লার এই মন্তব্য আরও এক ধাপ এগিয়ে দিল সেই বিক্ষোভকে।

এদিন মাইক্রোসফট ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি প্রকাশ করা হয়, সেখানে সত্য নাদেল্লার যে উদ্ধৃতই প্রকাশ করে তাঁর বক্তব্য তুলে ধরা হয়। “আশা করি ভারতে উদ্বাস্তু হিসাবে এসে কেউ স্টার্ট আপ সংস্থা খুলবেন অথবা বহুজাতিক সংস্থার নেতৃত্ব দেবেন, যা ভারতের অর্থনীতি ও সমাজকে উপকৃত করবে। তবে এবিষয়ে সব থেকে ভালো একটা খবর হল, দেশের সাধারন মানুষও এখন আইন নিয়ে তর্ক-বিতর্ক করতে সক্ষ্ম হয়েছেন।“ তবে ভারতে জন্ম ও বড় হওয়ার পর আমেরিকার অভিবাসী হিসাবেই তিনি তাঁর অভিজ্ঞতার কথায় এখানে উল্লেখ করেছেন বলে জানিয়েছেন নাদেল্লা।

তবে মাইক্রোসফট সিইও-এর এই মন্তব্যে যে বেজায় চটেছে গেরুয়া শিবির তা বুঝিয়ে দিয়েছেন বিজেপি সাংসদ মীনাক্ষি লেখি। সোমবার নাদেল্লার সিএএ বিরোধী মন্তব্যের পরেই মঙ্গলবার ট্যুইট করে লেখেন, “কেন সাক্ষর লোকেদের শিক্ষিত হওয়া প্রয়োজন, এটাই তার আদর্শ উদাহরন। বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং আফগানিস্তান থেকে ধর্মীয় কারনে অত্যাচারিত হয়ে ভারতে আশ্রন নেওয়া সংখ্যালঘুদের নাগরিকত্ব দেওয়ার জন্যই সিএএ।“

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.