ভোটের মুখে দুয়ারে সরকারের কি প্রয়োজন? প্রশ্ন শমীকের

ভোটের মুখে দুয়ারে সরকারের কি প্রয়োজন? প্রশ্ন শমীকের
ভোটের মুখে দুয়ারে সরকারের কি প্রয়োজন? প্রশ্ন শমীকের/Image Source- Screengrab from Facebook Video Post by @SamikBJP

তৃণমূলের ইস্তেহার একেবারেই অর্থহীন। বুধবার শাসকদলের ইস্তেহার প্রকাশের পর এই মর্মে কটাক্ষ করলো বঙ্গ বিজেপি। এদিনের প্রকাশিত ইস্তেহার রাজ্যের সকল পরিবারগুলিকে ন্যূনতম আর্থিক সুরক্ষার আশ্বাস দিয়েছে ঘাসফুল শিবির।

এদিনের ইস্তেহারে তৃণমূলের নির্বাচনী ইস্তেহারে বলা হয়েছে, প্রতি বছরে চারবার করে দুয়ারে সরকার। সব সমস্যার সমাধান হবে। ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে জাত-ধর্ম নির্বিশেষে প্রত্যেক বিধবাকে ১০০০ টাকা করে ভাতা দেওয়া হবে। এছাড়াও, নির্বাচনী ইস্তেহারে বলা হয়েছে, পাহাড়ে স্থায়ী-শান্তি রাখার জন্য স্পেশাল ডেভলপমেন্ট বোর্ড গঠন করা হবে। পাশাপাশি, রাজ্য সরকারের একাধিক সাফল্যের কথাও তুলে ধরা হয়েছে।

এদিন প্রতি বছরে চারবার করে দুয়ারে সরকার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি নিয়ে কটাক্ষ করেন বিজেপি মুখপাত্র তথা সহ সভাপতি শমীক ভট্টাচার্য। তিনি প্রশ্ন তোলেন, “২০১২ সালে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন,সব সব কাজ হয়ে গিয়েছে। তাহলে এখন দুয়ারে সরকারের কী প্রয়োজন”?

শমীক বাবু আরও অভিযোগ করে জানান, “রাজ্যে কাজ নেই, শিল্প নেই, ১০ বছরে চাকরি নেই। সরকার টেট পরীক্ষা নিতে পারেনি। ইস্তাহারে এই সবকিছুর কথা কোথায়? সব প্রকল্পের নাম বদল করে রাজ্য সরকার চলছে। সব প্রকল্প কেন্দ্রীয় সরকারের। টাকাও কেন্দ্রীয় সরকার দেয়। তাই তৃণমূলের ইস্তেহার অর্থহীন”।

একইসঙ্গে তৃণমূলের ভোট প্রকৌশলী প্রশান্ত কিশোরকেও একহাত নিয়েছেন তিনি। নাম না করে পিকে কে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, “কোটি কোটি টাকা দিয়ে যাকে এনেছেন তাঁর মাথা থেকে কোনও নতুন প্রকল্প এল না”। কেন্দ্রীয় সরকারের প্রকল্প ভিন্ন নামে রাজ্য সরকার চালাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন এই বিজেপি নেতা।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.