ভোটের মুখে উত্তপ্ত কালিঘাট! মমতার পাড়ায় প্রার্থীর মৃতদেহ নিয়ে বিক্ষোভ বিজেপি-র

ভোটের মুখে উত্তপ্ত কালিঘাট! মমতার পাড়ায় প্রার্থীর মৃতদেহ নিয়ে বিক্ষোভ বিজেপি-র
ভোটের মুখে উত্তপ্ত কালিঘাট! মমতার পাড়ায় প্রার্থীর মৃতদেহ নিয়ে বিক্ষোভ বিজেপি-র

উপনির্বাচনের আগেই কালীঘাটে তুলকালাম। মৃত বিজেপি প্রার্থীর দেহ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে বিক্ষোভে বসলেন বিজেপির নতুন রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাড়ায় মৃত নেতার দেহ নিয়ে মিছিলও করল বিজেপি নেতা-কর্মীরা। এমনকি পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতেও জড়ালেন তাঁরা।

একুশের বিধানসভা নির্বাচনে মগরাহাট পশ্চিম বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী হয়েছিলেন মানস সাহা। কিন্তু তিনি পরাজিত হন। শনিবার থেকে পেটের অসুখ ভুগে ঠাকুরপুকুরের এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তিনি। বুধবার সেই হাসপাতালেই মৃত্যু হয় তাঁর। এরপরই বিজেপির তরফে অভিযোগ, ভোট পরবর্তী হিংসায় মৃত্যু হয়েছে মানসের। বৃহস্পতিবার শেষ শ্রদ্ধা জানাতে মুরলিধর সেন লেনে বিজেপির রাজ্য কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁর মৃতদেহ। তারপর শববাহী গাড়িতে করে ক্যাওড়াতলা মহাশ্মশানের উদ্দেশে রওনা দেন বিজেপি নেতা-কর্মীরা। সে সময়ই কালীঘাটে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে আচমকা বিক্ষোভে বসেন তাঁরা।

বিজেপির নতুন রাজ্য সভাপতি রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার সহ বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংহ, ভবানীপুর উপনির্বাচনে বিজেপি প্রার্থী প্রিয়ঙ্কা টিব্রেওয়ালরা দলীয় নেতার মৃতদেহ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির দিকে যাওয়ার চেষ্টা করেন। সুকান্ত শববাহী গাড়ির সামনে বসে পড়েন। তখনই পুলিশ তাঁদের বাধা দেয়। কিন্তু মানস সাহার দেহ রাস্তার উপর রেখেই পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে জড়িয়ে পড়েন বিজেপির নেতা-কর্মীরা৷ পরে অবশ্য পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

উল্লেখ্য, মানস বাবুর মৃত্যুর পরই বিজেপি অভিযোগ তোলে, ভোটের ফলাফল প্রকাশের দিনই গণনাকেন্দ্রের বাইরে মানস সাহাকে বেধড়ক মারধর করা হয়েছিল। সে সময় মাথায় আঘাত লাগে তাঁর। নিউরো সায়েন্সে একমাস ধরে ভর্তিও ছিলেন। এরপর শনিবার ফের অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলে সেখানেই মৃত্যু হয় মানস বাবুর। এরপরই তাঁর স্ত্রীর অভিযোগ, পরিকল্পিতভাবেই খুন করা হয়েছে তাঁর স্বামীকে। এদিনের ঘটনা প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার বলেন, “গোটা পশ্চিমবঙ্গের মানুষ এর জবাব দেবেন। পুলিশ দিয়ে বিজেপিকে রুখতে পারা যাবে না।” তৃণমূলের অবশ্য দাবী, নতুন রাজ্য সভাপতি প্রচার চাইছেন।