ডিজিটাল মাধ্যমে প্রচারে বিজেপি, হাতিয়ার ‘মোদীপাড়া অ্যাপ’

ডিজিটাল মাধ্যমে প্রচারে বিজেপি, হাতিয়ার 'মোদীপাড়া অ্যাপ'
Image Source: Facebook BJP West Bengal

দেওয়াল লিখনের দিন শেষ। ভোটে জনতা জনার্দনের মন পেতে সবচেয়ে বড় ভরসা ফেসবুক দেওয়াল।অমিত শাহের নেতৃত্বে সায়েন্স সিটি অডিটোরিয়ামে ‘মোদিপাড়া’ নামক অ্যাপ উদ্বোধন করল বিজেপি। বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে ডিজিটাল প্রচারে জোর দিতেই এই অ্যাপ আনল রাজ্য বিজেপি। ফেসবুক, ট্যুইটার, হোয়াটস অ্যাপের তথ্যও এই মোদিপাড়া অ্যাপে নিয়ে আসা যাবে বলে জানাচ্ছেন বিজেপির কর্মকর্তারা। সেই সঙ্গে সমস্ত দলীয় কর্মসূচি সম্পর্কে বিশদে জানা যাবে এই অ্যাপেই।

ভরসা ডিজিটাল জনসংযোগ, করোনা পরিস্থিতিতে ডিজিটাল প্রচারের গুরুত্ব বেড়েছে আরও। অমিত শাহের বঙ্গ সফর সূচিতে তাই এবার যোগ হয়েছিল আইটি সেল বৈঠক। সায়েন্স সিটির ওই বৈঠকে অমিত শাহ বলেন, “আজ মোদিপাড়া ওয়েবসাইট ও অ্যাপটি উদ্বোধন করছি। এই অ্যাপে আমাদের সমর্থক, মতদাতাদের সবার সক্রিয় যোগদান চাই।” অমিত শাহের যুক্তি, এই ভোটে ২০০ আসন জয়ে সাইবার যোদ্ধাদের গুরুদায়িত্ব নিতে হবে।

বিজেপি পশ্চিমবঙ্গে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের জন্য তাদের ডিজিটাল প্রচারকে আরও কার্যকর করতে এই অ্যাপ কলকাতায় চালু করল।মোদীপাড়া অ্যাপ বিজেপি কর্মকর্তাদের এবং বিজেপি সমর্থকদের জন্য একটি সবরকম বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন ডিজিটাল কন্টেন্ট এবং হাব। দলের কার্যকর্তারা, সমর্থক এবং ভোটাদাতারা এর মাধ্যমে কেন্দ্রীয় সরকারের সাম্প্রতিক কাজ, সর্বভারতীয় এবং পশ্চিমবঙ্গের বিজেপির কর্মকাণ্ড সম্পর্কে জানতে পারবে। ফেসবুক, হোয়্যাটসএপ এবং টুইটারের মত সোশ্যাল মিডিয়ায় এই মোদীপাড়া অ্যাপের বিষয়গুলি শেয়ার করতে পারবে।

বিজেপি-র তরফে জানানো হয়েছে, তাদের সমর্থকরা এই অ্যাপের মাধ্যমে হোয়্যাটসঅ্যাপ স্ট্যাটাস এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে নিজেদের শুভেচ্ছাবার্তা সংযোগে থাকা মানুষদের সঙ্গে ভাগ করে নিতে পারবেন। এই অ্যাপের মাধ্যমে বাড়ি থেকেই সব মানুষকে এই কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করা যাবে। অ্যাপটি ওয়ান স্টপ প্লাটফর্ম হয়ে উঠবে। এর মাধ্যমে বিজেপি কার্যকর্তা এবং সমর্থকরা একটি সমষ্টিগতভাবে দলের বার্তা এবং কথা পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি কোনায় ছড়িয়ে দিতে পারে। এই অ্যাপ দলীয় কর্মীদের উদ্বুদ্ধ করা এবং আসন্ন নির্বাচনে দলের কাজে এবং প্রচারে গতি আনা, সাম্প্রতিক তথ্য ছড়িয়ে দেওয়া এবং ‘সোনার বাংলার’ স্বপ্নকে সাকার করবে।

সম্প্রতিকালে ডিজিটাল প্রচারে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন হবে এই অ্যাপের মাধ্যমে যার দ্বারা একটি মাত্র বোতাম টিপেই বাড়ি বসে বার্তা ছড়িয়ে দেওয়া সম্ভব হবে। বিজেপি এখন এগিয়ে চলেছে অনলাইনে সমর্থকদের শক্তিশালী অন-গ্রাউন্ড সাংগঠনিক নেটওয়ার্ককে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কাজে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.