বাবুলের পর কি তবে তৃণমূলের লকেট প্রাপ্তি? জল্পনা উড়িয়ে, কী বলছেন বিজেপি সাংসদ?

বাবুলের পর কি তবে তৃণমূলের লকেট প্রাপ্তি? জল্পনা উড়িয়ে, কী বলছেন বিজেপি সাংসদ?
বাবুলের পর কি তবে তৃণমূলের লকেট প্রাপ্তি? জল্পনা উড়িয়ে, কী বলছেন বিজেপি সাংসদ?

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপির চিত্রটা একরকম ছিল। বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগদানের ধুম পড়ে গিয়েছিল। আবার বিধানসভা নির্বাচনের পর চিত্রটা একেবারে উল্টো। এখন বিজেপি থেকে তৃণমূলে যোগদানের হিড়িক পড়ে গিয়েছে।

মুকুল রায় থেকে শুরু হয়ে এখনও পর্যন্ত বাবুল সুপ্রিয়। এরপরেও শোনা যাচ্ছে তৃণমূলের নেতা-নেত্রীদের মুখে, তালিকায় আরও অনেকেই আছেন। বাবুল সুপ্রিয়র তৃণমূলে যোগদান এমনিতেই রাজ্য এবং জাতীয় রাজনীতিতে বড় ধাক্কা। এবার শোনা যাচ্ছে, এই তালিকায় নাকি রয়েছেন হুগলির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়ের নামও। শুধু তাই নয়, গুঞ্জন এও যে, এর মধ্যেই নাকি তিনি তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠকও করেছেন। বাংলার রাজনীতির অন্দরমহলে এখন এমনই কানাঘুষো চলছে। এবার তৃণমূলে যোগদান নিয়ে মুখ খুললেন, খোদ হুগলির বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়।

সোমবার একটি সংবাদপত্রের খবরকে ‘ভুয়ো’ বলে দাবি করেছেন বিজেপি সাংসদ। সঙ্গে লেখেন, “আমি সাধারণত ভুয়ো খবরে কান দিই না। কিন্তু এটায় গুরুত্ব দিতে বাধ্য হলাম। প্রথমেই বলে রাখি, আয়ারাম-গয়ারাম রাজনীতিতে’ আমি বিশ্বাস করি না।” এর পাশাপাশি সংবাদমাধ্যমকে নিশানা করে বলেন, ‘ভুয়ো খবর ছড়াচ্ছে কিছু সংবাদমাধ্যম। এভাবে বিশ্বাসযোগ্যতা নষ্ট হচ্ছে।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, লকেট চট্টোপাধ্যায় রাজ্য রাজনীতিতে বিজেপির লড়াকু নেত্রী হিসেবেই পরিচিত। ২০১৯ সালে হুগলি থেকে সাংসদ হন তিনি। এরপর একুশের বিধানসভা ভোটে ফের চূঁচড়া বিধানসভা কেন্দ্র থেকে তাঁকে প্রার্থী করা হয়। কিন্তু পরাজিত হন তিনি। নির্বাচনে হারার পরই বেশকিছু ইস্যুতে রাজ্য বিজেপির সঙ্গে তাঁর দূরত্ব ক্রমশ বাড়ছিল। এমনকী, রাজ্য বিজেপির সভাপতির মন্তব্যের বিরোধিতা করতেও দেখা গিয়েছে তাঁকে। এরপরই জল্পনার শুরু।

তবে, রাজ্য রাজনীতিতে দলের অন্দরে যাইহোক না কেন, জাতীয় স্তরে লকেটের গুরুত্ব বেড়েছে। আগামী বছর উত্তরাখণ্ডের বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে, বাড়তি দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তাঁকে। উত্তরাখণ্ডে বিজেপির সহ পর্যবেক্ষক হিসেবে কাজ করবেন লকেট। পর্যবেক্ষক হিসেবে নিয়োগ করা হচ্ছে, কেন্দ্রীয় সংসদীয় মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশীকে। তাঁর তত্বাবধানেই কাজ করবেন লকেট চট্টোপাধ্যায় ও সর্দার আরপি সিং। এই পরিস্থিতিতে কালীঘাটে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে গোপন বৈঠকের জল্পনা সম্পূর্ণ নস্যাৎ করলেন লকেট চট্টোপাধ্যায়।