‘বাংলায় একুশের নির্বাচনে ভোট বেড়েছে, আমাদের সংগঠন মজবুত হয়েছে’, বৈঠকে দাবি নাড্ডার

‘বাংলায় একুশের নির্বাচনে ভোট বেড়েছে, আমাদের সংগঠন মজবুত হয়েছে’, বৈঠকে দাবি নাড্ডার
‘বাংলায় একুশের নির্বাচনে ভোট বেড়েছে, আমাদের সংগঠন মজবুত হয়েছে’, বৈঠকে দাবি নাড্ডার

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার পর এই প্রথম বিজেপির জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠক হল দিল্লিতে। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, ভারতীয় জনতা পার্টির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বাংলার প্রতিনিধিরাও।

সূত্রের খবর ছিল, এই বৈঠকে বাংলায় একুশের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল নিয়েও আলোচনা হতে পারে। তবে, এদিন একুশের নির্বাচনে বিজেপির ফল নিয়ে বাংলার মানুষকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা।

রাজধানীতে আয়োজিত বিজেপির এই বৈঠকে বাংলার পরিস্থিতি আলাদা করে উল্লেখ করা হয়েছে। উদ্বোধনী ভাষণে বাংলার জনগণকে ধন্যবাদ জানান সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। তিনি বলেন, ‘একসময় বাংলায় ৩ শতাংশের কাছাকাছি ছিল বিজেপির ভোট। একুশের নির্বাচনে সেখানে ৩৭ শতাংশ ভোট পেয়েছে বিজেপি। এটা ইতিহাসে প্রথম। রাজনীতির ছাত্ররাও মানতে বাধ্য হবেন এই উত্থান। বাংলায় আমাদের সংগঠন মজবুত হয়েছে। যদিও আমাদের কর্মীদের উপর হামলা হয়েছে। ৫৭ জন বিজেপি কর্মী খুন হয়েছেন। বহু মানুষ ঘরছাড়া হয়েছেন। আশ্রয় শিবিরে অনেকেই রয়েছেন।’

অন্যদিকে, একুশের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপিকে হারিয়ে তৃতীয়বারের জন্য বাংলার ক্ষমতায় আসা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন সরকারকে নিশানা করে তিনি বলেন, ‘কোভিড নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করা হচ্ছে না বাংলা থেকে। মোদীজি টিকা দিচ্ছেন। কিন্তু বাংলার মানুষকে টিকা দেওয়া হচ্ছে না। এটা অমানবিকতার দৃষ্টান্ত।’

উল্লেখ্য, এই বৈঠকে পাঁচ রাজ্যের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে পরিকল্পনার সঙ্গে নজর দেওয়া হয়েছে বাংলার পরিস্থিতি নিয়েও। ভোটে বিজেপির পারফরম্যান্স নিয়েও চুলচেরা বিশ্লেষণ করা হয় বলেও, সূত্রের খবর। বলা হয়েছে, বাংলায় যেসব বিজেপির প্রার্থীরা হিংসার শিকার হয়েছে, পদ্মশিবির তাঁদের সকলের পাশে দাঁড়াবে এবং তাঁরা যাতে হাইকোর্টে এবং সুপ্রিমকোর্টে  তাঁদের সঙ্গে হওয়া অন্যায়ের সঠিক বিচার পায়, সেই চেষ্টা করা হবে দলের পক্ষ থেকে।

জানা গিয়েছে, বিজেপির এই বৈঠকে প্রায় ৩৪২ জন সদস্য অংশগ্রহণ করেছিলেন। ডিজিটালি রেজিস্ট্রেশন করেছেন সকলেই। দলের বর্ষীয়ান নেতা এল কে আদবানি এবং মুরলী মনোহর যোশী তাঁদের বাড়ি থেকেই ভার্চুয়ালি যোগদান করেন বৈঠকে। এদিন বৈঠকের শুরুতে দেশে ১০০ কোটি ডোজ টিকাকরণ সম্পূর্ণ হওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী মোদীকে মালা পরিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। এ প্রসঙ্গে বলা হয় যে, প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী দৃষ্টিভঙ্গির ফলে দেশ আজ কোভিড-এর বিরুদ্ধে লড়াই করে ঘুরে দাঁড়াতে পারছে। প্রধানমন্ত্রীর গরীব কল্যাণ যোজনার মাধ্যমে লকডাউনে উপকৃত হয়েছে বহু পরিবার৷ সেই তথ্যও উল্লেখ করা হয় বৈঠকে। এছাড়াও বিজেপির এই বৈঠকে আলোচনায় উঠে আসে সিএএ, কৃষক সমস্যা ও আন্দোলন-এর বিষয়টিও।