জ্বালানির ভ্যাট কমানোর দাবিতে পথে নামল বিজেপি! মিছিলকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার রাজপথে

জ্বালানির ভ্যাট কমানোর দাবিতে পথে নামল বিজেপি! মিছিলকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার রাজপথে
জ্বালানির ভ্যাট কমানোর দাবিতে পথে নামল বিজেপি! মিছিলকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার রাজপথে

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ জ্বালানীর ভ্যাট কমানোর দাবিতে এদিন রাজ্য বিজেপির মিছিল ছিল। সেই মিছিল্কে কেন্দ্র করে এদিন মুরলীধর সেন লেনে ছড়াল তীব্র উত্তেজনা। মিছিলের শুরুতেই পুলিশের পক্ষ থেকে বাধা দেওয়া হয়। বিজেপির রাজ্য সদর দপ্তরের সামনে একের পর এক ব্যারিকেড করে সবদিক থেকে রাস্তা আটকে দেওয়া হয়। এর প্রতিবাদে সরব হয় পদ্মশিবির। পুলিশের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন রাজ্য শীর্ষ নেতৃত্ব।

দেশব্যাপী ক্রমাগত বেড়েই চলেছিল জ্বালানীর মূল্য। এই পরিস্থিতিতে গত বুধবারই পেট্রল এবং ডিজেলের লিটার প্রতি যথাক্রমে ৫ এবং ১০ টাকা শুল্ক কমায় কেন্দ্রের মোদী সরকার। বৃহস্পতিবার থেকে তা কার্যকর হয়। পরে কেন্দ্রের পথে হেঁটে বেশ কিছু রাজ্যও শুল্ক কমানোর সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু বাংলার সরকার এখনও ভ্যাট কমায়নি। পেট্রোপণ্যে শুল্ক কমানো নিয়ে রাজ্য সরকারকে চাপে রাখতে, প্রতিবাদ মিছিলের আয়োজন করে রাজ্য বিজেপি। সোমবার বিজেপির রাজ্য সদর দপ্তর মুরলীধর সেন লেন থেকে রানি রাসমণি রোড পর্যন্ত প্রতিবাদ মিছিল করার কথা ঘোষণা করে বিজেপি। রবিবার সাংবাদিক বৈঠকে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে, মিছিলের অনুমতি দেয়নি কলকাতা পুলিশ।

এদিকে, পুলিশের অনুমতি না পেলেও, মিছিলের সিদ্ধান্তে অনড় থাকে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব। তাই নির্দিষ্ট কর্মসূচী অনুযায়ী, সোমবার দুপুর ১টা নাগাদ মুরলীধর সেন লেনে জড়ো হন অগণিত বিজেপি কর্মী-সমর্থক। ছিলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার, বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষ, রাহুল সিনহা, রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়, জগন্নাথ সরকার-সহ অনেকেই। তবে, মিছিল শুরুর সময়ই তা আটকে দেয় পুলিশ। বিজেপির সদর দপ্তরের সামনে একের পর এক ব্যারিকেড করে দেওয়া হয়। ব্যারিকেডের সামনে দাঁড়িয়ে পুলিশের সঙ্গে বচসায় জড়ান জগন্নাথ সরকার।

মিছিল করতে না দেওয়ার পুলিশের সিদ্ধান্তে বিরক্ত প্রকাশ করে গেরুয়া শিবির। রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ‘কেন্দ্র সরকার শুল্ক কমিয়েছে। কেন রাজ্য সরকার ভ্যাট কমাচ্ছে না? কর ছাড়া দিয়ে জনগণের সুবিধা করুন। আমাদের দাবি ভাতা নয়, চাকরি চাই। যত মারবেন বিজেপি তত বাড়বে।’ পাশাপাশি বাড়তি বিদ্যুতের মাশুল কমানোরও দাবি জানান শুভেন্দু।

অন্যদিকে, বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষের একই বক্তব্য। তিনি বলেন, ‘মানুষ বিহার যাচ্ছে কম দামে জ্বালানি কিনতে। এত কাটমানি খেলে কীভাবে দাম কমবে?’ আবার বিজেপির ভয়ে মিছিল আটকানো হয়েছে বলেই অভিযোগ বিজেপি রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদারের। জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার পেট্রল পাম্প প্রতিবাদ কর্মসূচির সিদ্ধান্ত বিজেপির। বেলা ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত রাজ্যের প্রত্যেকটি পেট্রল পাম্পে সচেতনতামূলক প্রচার করবে গেরুয়া শিবির। পরবর্তীকালে বিদ্যুতের মাশুল কমানোর দাবিতেও পথে নামার ভাবনা রয়েছে বিজেপির। এমনটাই সূত্রের খবর।