তৃণমূলের ডিম-ভাতের পাল্টা বিজেপির মাছ-ভাত

তৃণমূলের ডিম-ভাতের পাল্টা বিজেপির মাছ-ভাত
প্রতীকী ছবি

কথায় বলে মাছে-ভাতে বাঙালি। বিধানসভা নির্বাচনের আগে বাঙালি আবেগকে ধরতে নতুন উদ্যোগ নিল বিজেপি। ডিম-ভাতের পাল্টা মাছ-ভাত চালু হল পূর্ব মেদিনীপুরের এগরায়।  

গত সপ্তাহেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ‘মা’ প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। মাত্র পাঁচ টাকায় ডিম-ভাত, ডাল ও একটি সবজির মাধ্যমে ভরপেট খাওয়ারের আয়োজন করেন ওই প্রকল্পে। আপাতত কলকাতার সমস্ত ওয়ার্ডে ধাপে ধাপে চালু হচ্ছে এই ক্যান্টিন। তারই পাল্টা বাঙালি আবেগকে কাজে লাগিয়ে ‘মাছে ভাতে বাঙালি’ নামক প্রকল্প চালু করল বিজেপি।

মুখ্যমন্ত্রী যখন মাত্র পাঁচ টাকায় ‘ডিম-ভাত’ দিয়ে জনতার দরবারে এনেছেন ‘মা’ ক্যান্টিন। ঠিক তখনই পাল্টা চালে জেলার মানুষদের দরবারে যেতে বিনা পয়সায় ‘মাছ- ভাত, আলুভাজা,চাটনি তুলে দিচ্ছে গেরুয়া শিবির। বিজেপি সূত্রে খবর, এগরার  এইভাবে আগামী কয়েক মাস বিনা পয়সায় মাছ-ভাত খাওয়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এগরাতেই বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে এই পরিষেবা দেওয়া হবে। মূলত শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ নেতাদের উদ্যোগেই এই আয়োজন বলে জানা গিয়েছে। 

এগরা জুড়ে এই উদ্যোগে মূল হোতা হলেন কনিষ্ক পাণ্ডা ও বিদেশ পাত্র। শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ বিজেপি নেতাদের এই উদ্যোগকে কটাক্ষ করেছে জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। তাঁদের দাবি, মুখ্যমন্ত্রীর প্রকল্পের অনুকরণ আগেও করেছে বঙ্গ বিজেপি। এবার মানুষকে খাওয়ানোর ব্যাপারেই সেই তৃণমূলের প্রকল্পের অনুকরণ করছে এতে কিছুই লাভ হবে না। কনিষ্কবাবু জানিয়েছেন, ‘এটা আমাদের সারাবছরের কর্মসূচী। আর মুখ্যমন্ত্রীর পাঁচ টাকায় ডিম-ভাত কিছুদিন পরেই বন্ধ হয়ে যাবে।’ 

এই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ ছুঁড়ে বিদেশ পাত্র জানিয়েছেন, ‘দিদি পাঁচ টাকায় ডিম-ভাত খাওয়াচ্ছে, আর আমরা কোনও পয়সা না নিয়েই সাধারণ মানুষকে মাছ-ভাত খাওয়াবো। বাঙালি আবেগের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে এই মাছ-ভাত। তাই এগরার বিভিন্ন এলাকায় এই পরিষেবা চলছে কিছুদিন।’ 

যাই হোক রাজ্য রাজনীতিতে ভোট যতই এগিয়ে আসছে আমজনতার মন পেতে শাসক-বিরোধীদের মন পেতে নানান প্রকল্পে লাভ হচ্ছে বঙ্গ বাসীর, সেটা বলাই যায়। 

আরো পড়ুনঃ   চলতি মাস থেকেই প্রচারে দেখা যেতে পারে গৌতম গম্ভীরকে