দুশ্চিন্তা বাড়িয়ে বাংলাতে প্রবেশ করল ব্ল্যাক ফাঙ্গাস! তিনজনের শরীরে মিলল এই ভাইরাসের হদিশ

দুশ্চিন্তা বাড়িয়ে বাংলাতে প্রবেশ করল ব্ল্যাক ফাঙ্গাস! তিনজনের শরীরে মিলল এই ভাইরাসের হদিশ
দুশ্চিন্তা বাড়িয়ে বাংলাতে প্রবেশ করল ব্ল্যাক ফাঙ্গাস! তিনজনের শরীরে মিলল এই ভাইরাসের হদিশ / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রভাবে বিধ্বস্ত গোটা দেশ। বাংলাও এর বাইরে নয়। এ রাজ্যেও বাড়ছে সংক্রমণ। এবার উদ্বেগ এবং দুশ্চিন্তা আরও বাড়িয়ে বাংলায় প্রবেশ ঘটল মারণ ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের!

আগেই এই ছত্রাক সম্পর্কে বারবার সতর্ক করা হয়েছে। তাও রোখা সম্ভব হল না। এবার এ রাজ্যে ঢুকে পড়ল ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা কালো ছত্রাক। বাংলার দুই প্রতিবেশী রাজ্য থেকে এই ছত্রাক বাংলায় প্রবেশ করেছে বলে জানা গিয়েছে।

জানা গিয়েছে, সম্প্রতি ঝাড়খণ্ড এবং বিহার থেকে চিকিৎসা করাতে এ রাজ্যে এসেছিলেন তিনজন। তাঁদের শরীরেই মিলেছে এই কালো ছত্রাকের হদিশ। প্রায় কয়েক সপ্তাহ আগে ঝাড়খণ্ড থেকে দুইজন এবং বিহার থেকে একজন বাংলায় চোখের চিকিৎসা করাতে আসেন। ৩৫ এবং ৫০ বছরের দুই ব্যক্তি এসেছিলেন ঝাড়খণ্ড থেকে। আর বিহার থেকে এসেছিলেন বছর ৪০ এর এক ব্যক্তি। প্রথম দুই ব্যক্তি চোখের সমস্যা নিয়ে দুর্গাপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে দেখান আর তৃতীয় ব্যক্তি দেখান ওই হাসপাতালেরই নিউটাউনের শাখায়।

এঁদের সকলের চোখের পরীক্ষা করার সময়ই জানা যায় যে, তাঁরা করোনায় আক্রান্ত। পাশাপাশি তাঁদের শরীরে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা কালো ছত্রাকেরও হদিশ মেলে। উল্লেখ্য, করোনা আক্রান্তদের শরীরেই এই ছত্রাকের সংক্রমণ ঘটছে। তাই এই তিনজনের মধ্যে দিয়েই রাজ্যে মারণ ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের প্রবেশ ঘটল বলে মনে করা হচ্ছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, উচ্চ ডায়াবেটিক রোগী বা করোনা আক্রান্তদের শরীরেই এই ছত্রাকের ছড়িয়ে পড়ার সম্ভবনা থাকে। তবে, স্বস্তির খবর, এই রোগটি ছোঁয়াচে নয়। কিন্তু বেশ কিছু লক্ষণ নজরে পড়লে বুঝে নিতে হবে যে, উক্ত ব্যক্তির শরীরে কালো ছত্রাক বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বাসা বেধেছে। যেমন এইসব উপসর্গের মধ্যে রয়েছে, মাথা ব্যথা, নিঃশ্বাসের সমস্যা, দাঁতে যন্ত্রণা, চোখ ফুলে যাওয়া, চোখ ব্যথা, নাক থেকে রক্ত বের হওয়া, রক্তবমি ইত্যাদি। এমন সব উপসর্গ নজরে পড়লে, দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এই রোগের চিকিৎসার জন্য অ্যাম্ফোটেরসিন-বি ইঞ্জেকশন প্রয়োজন। তবে তা জোগাড় করা বেশ কষ্টদায়ক এবং ব্যয়বহুলও। ইঞ্জেকশন প্রতি দাম পড়তে পারে প্রায় ৯ হাজার টাকা। উল্লেখ্য, ইতিমধ্যে, গুজরাত, দিল্লি, হরিয়ানা, মহারাষ্ট্র-সহ মোট পাঁচ রাজ্যে হদিশ মিলেছে এই কালো ছত্রাকের।