অর্জুন সিং-এর বাড়িতে বোমাবাজির ঘটনায় এনআইএ-কে তদন্তের নির্দেশ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের

অর্জুন সিং-এর বাড়িতে বোমাবাজির ঘটনায় এনআইএ-কে তদন্তের নির্দেশ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের
অর্জুন সিং-এর বাড়িতে বোমাবাজির ঘটনায় এনআইএ-কে তদন্তের নির্দেশ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ ৮ সেপ্টেম্বর বুধবার সকালে বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংয়ের বাড়ি লক্ষ্য করে বোমা ছোড়া হয়। ভোরবেলায় একদল দুষ্কৃতী বোমা ছুড়ে পালায়। একটি বোমা ফাটে সিআইএসএফের জওয়ানদের পাহারাস্থলে। এবার সেই ঘটনায় এএনআই-কে তদন্তের নির্দেশ দিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। এমনটাই সূত্রের খবর। এই ঘটনায় খুনের চেষ্টা, সংগঠিত অপরাধ, বিস্ফোরক আইনে মামলা দায়ের হয়েছে।

উল্লেখ্য, ওইদিন সকাল সাড়ে ৬ টা নাগাদ জগদ্দলের বিজেপি সাংসদের বাড়ি লক্ষ্য করে পরপর তিনটি বোমা ছোড়ে দুষ্কৃতীরা। যদিও ঘটনার সময় বাড়িতে ছিলেন না ব্যারাকপুরের সাংসদ। যদিও এই হামলা প্রথমবার নয়। এর আগেও বোমা পড়েছে এই বিজেপি সাংসদের বাড়ির সামনে। কিন্তু তাঁর বাড়িতে হামলা এই প্রথম। এদিন কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের পর খুশি অর্জুন সিং। তিনি বলেন, ‘এনআইএ তদন্ত করলে জানতে পারব পিছনে কে আছে। সবটাই স্পষ্ট হয়ে যাবে।’

সাংসদ অর্জুন সিং-এর বাড়িতে এই হামলার জেরে ফের একবার রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে টুইটে সরব হন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। টুইট করে তিনি লেখেন যে, ‘পশ্চিমবঙ্গে হিংসার শেষ দেখা যাচ্ছে না। সাংসদের বাড়ির সামনে বোমাবাজি আইনশৃঙ্খলার পক্ষে উদ্বেগজনক।’

রাজ্যপাল ছাড়াও এই ঘটনা প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বক্তব্য ছিল, ‘এটা ওর বাড়ির সামনের রোজকার ঘটনা হয়ে গিয়েছে। অর্জুন সিংয়ের মতো নেতাকে নতমস্তক করা যাচ্ছে না সেই কারণেই এই চেষ্টা। তাঁর পরিবার, ব্যবসা সমস্তকিছু দিয়ে অর্জুন সিংকে উক্তত্য করার চেষ্টা করছে। আজ থেকে নয় আড়াই বছর ধরে যেদিন থেকে তিনি বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন এটা হয়ে আসছে। অর্জুন সিং তার যোগ্য জবাব দিচ্ছেন।’

ওই বোমাবাজির ঘটনার পর, দাবি করেছিলেন যে, ভবানীপুরে ভোটের দায়িত্ব পেতেই ভয় দেখাতেই, তাঁর বাড়িতে হামলা চালানো হয়েছে। অন্যদিকে, তৃণমূলের পক্ষ থেকে কটাক্ষে সুরে বলা হয়েছিল, খবরে ভেসে থাকতে চান অর্জুন সিং। কাদের মধ্যে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, তা এতেই স্পষ্ট। আবার সিসি ক্যামেরার ফুটেজের সূত্রে পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় যে, দুষ্কৃতীদের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে বিবাদের জেরে এক পক্ষ অপর পক্ষের ওপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা পালিয়ে যাওয়ায় আক্রান্তরা বোমা ছোড়ে। পরে এই ঘটনায় পুলিশ ২ জনকে আটক করে।