বৃহস্পতিবার, ১৯ মে, ২০২২

বালি নিখোঁজ কাণ্ডে ৫ দিন পর রহস্যের সমাধান! দুই রাজমিস্ত্রির সঙ্গে পালিয়েছেন বাড়ির দুই বউ

০৬:৪২ পিএম, ডিসেম্বর ২০, ২০২১

বালি নিখোঁজ কাণ্ডে ৫ দিন পর রহস্যের সমাধান! দুই রাজমিস্ত্রির সঙ্গে পালিয়েছেন বাড়ির দুই বউ

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ পাঁচদিন পর অবশেষে বালি নিখোঁজ কাণ্ডে রহস্যের সমাধান হল। খোঁজ মিলল নিখোঁজ দুই গৃহবধূ এবং সাত বছরের শিশুর। গত সপ্তাহের বুধবার শ্রীরামপুরে কেনাকাটা করতে বেরিয়ে নিখোঁজ হয়েছিলেন নিশ্চিন্দার আনন্দনগরের একই পরিবারের দুই গৃহবধূ এবং সাত বছরের শিশু।

এরপর সেই ঘটনার তদন্তে নেমে পাঁচদিন পর নিশ্চিন্দা থানার পুলিশ জানতে পারল যে, ওইদিনই মুর্শিদাবাদে দুই পরিচিতের কাছে চলে গিয়েছিলেন তাঁরা। ওই দুই পরিচিত সম্পর্কে তাঁদের ‘প্রেমিক’ বলেই জানা গিয়েছে পুলিশ সূত্রে।

উল্লেখ্য, গত ১৫ ডিসেম্বর বেলা ১২ টা নাগাদ শীতের পোশাক কেনাকাটা করতে বাড়ি থেকে বেরোনোর পর থেকে আর সন্ধান মেলেনি অনন্যা কর্মকার, তাঁর জা রিয়া কর্মকার এবং রিয়ার সাত বছরের ছেলে আয়ুশ কর্মকারের। এরপরই থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করে বালির কর্মকার পরিবার। ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে যে, নিখোঁজদের শেষ মোবাইলের টাওয়ার লোকেশন শ্রীরামপুরের রয় এমসি ভাদুড়ি লাহিড়ী স্ট্রিট। যদিও সেখানে তাঁদের কোনও খোঁজ মেলেনি। এরপরই নিখোঁজদের কল লিস্টের সূত্র ধরেই মেলে সাফল্য। পুলিশ সূত্রে খবর, বড় বউয়ের মোবাইলের কললিস্ট ধরে তদন্তেই সাফল্য আসে। তবে, বাড়ির ৭ বছরের নাতিও কি ২ বউয়ের সঙ্গে মুম্বইতেই রয়েছে? সে প্রশ্নে ধোঁয়াশা রয়েছে।

এদিকে, আপাতত মুম্বইয়ে তাঁদের সঠিক অবস্থান জানার চেষ্টা করছে পুলিশ। একটি বিশেষ দল গঠন করে মুম্বইতে পাঠানোর তোড়জোড়ও শুরু হয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মুর্শিদাবাদে যে দুই পরিচিতের কাছে গিয়েছিলেন অনন্যা এবং রিয়া, তাঁদের নাম সুভাষ ও শেখর। মাস ছয়েক আগে তাঁরা নিশ্চিন্দায় কর্মকার বাড়িতে রাজমিস্ত্রির কাজ করতে এসেছিলেন। সেই সময়ই সুভাষ ও শেখরের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা বাড়ে অনন্যা ও রিয়ার। ধীরে ধীরে প্রণয়ের সম্পর্কও গড়ে ওঠে।