ফের অনুব্রত গড়ে প্রার্থী বদল, নেপথ্যে কারন কি?

ফের অনুব্রত গড়ে প্রার্থী বদল, নেপথ্যে কারন কি?
ফের অনুব্রত গড়ে প্রার্থী বদল, নেপথ্যে কারন কি?

অনুব্রত গড়ে ফের প্রার্থী বদল। তবে এবার কারন অবশ্য দলীয় অসন্তোষ নয়। মুখ্যমন্ত্রী ঘোষিত তৃণমূল প্রার্থী করোনা আক্রান্ত হয়ে কলকাতার হাসপাতালে চিকিত্‍সাধীন। ফলে নতুন প্রার্থী ঘোষনা করল দল।মুরারই বিধানসভায় তৃণমূলের পূর্বঘোষিত প্রার্থী আব্দুর রহমানের জায়গায় নতুন প্রার্থী হলেন মোশারফ হোসেন।

জানা গেছে, অতিসম্প্রতি আব্দুর রহমান করোনায় আক্রান্ত হন। তিনি ২৬ মার্চ থেকে হাসপাতালে ভর্তি। এই পরিস্থিতিতে প্রার্থীবদলের সিদ্ধান্ত নিল দল। ওই কেন্দ্রে প্রার্থী করা হল মোসারাফ হোসেন।

দলের অন্দরে ক্ষোভের কারণে এর আগে দুবরাজপুর বিধানসভার প্রার্থী পরিবর্তন করেছে শাসক দল। দুবরাজপুরের পূর্বঘোষিত প্রার্থী অসীমা ধীবরের পরিবর্তে প্রার্থী করা হয় দেবব্রত সাহাকে। আর এবার প্রার্থী পরিবর্তনের জল্পনা তৈরি হয়েছে মুরারই বিধানসভায়। কিন্তু কীভাবে এই ঘটনার সূত্রপাত। মুরারই বিধানসভায় তৃণমূলের পূর্বঘোষিত প্রার্থী হন আব্দুর রহমান। তিনি এর আগেও এই বিধানসভা থেকে জয়ী হয়েছেন। তবে তাকে হঠাত্‍ পরিবর্তনের কারণে কোনো দলীয় ক্ষোভ নেই বলেই জানা যাচ্ছে।

এবিষয়ে বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল জানিয়েছিলেন, আব্দুর রহমান করোনা আক্রান্ত হওয়ায় প্রার্থী পরিবর্তনের প্রয়োজন হয়েছে।সম্ভাব্য প্রার্থী হচ্ছেন মোশারফ হোসেন। চিকিত্‍সক মোশারফ হোসেন এবং তাদের পরিবার দীর্ঘদিন ধরেই কংগ্রেসী পরিবার বলেই পরিচিত। মোশারফ হোসেনের বাবা মোতাহার হোসেন কংগ্রেস আমলে দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন। আর তার আমলে এলাকায় বিপুল উন্নয়ন হয়েছে বলেও দাবি করে থাকেন অধিকাংশ মানুষ। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাদের পরিবারের যথেষ্ট মিথ রয়েছে এলাকায়। অন্যদিকে মুরারই বিধানসভায় কংগ্রেস এবং তৃণমূলের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই লক্ষ্য করা গেছে গত বিধানসভা নির্বাচনে। যেখানে কংগ্রেস প্রার্থী মাত্র ২৮০ ভোটে তৃণমূলের কাছে পরাজিত হয়।

কিন্তু নতুন প্রার্থী নিয়ে ও কংগ্রেস তৃণমূলের টানাপোড়েন দেখা গেছে। কারণ এর আগে মুরারই বিধানসভার কংগ্রেস প্রার্থীকে নিয়ে এলাকায় ক্ষোভ দেখা দেয়। তার পরিপ্রেক্ষিতে প্রার্থী পরিবর্তনের সম্ভাবনা তৈরি হয় কংগ্রেসের। সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নাম উঠে এসেছিল এলাকার শিশু চিকিত্‍সক ডাঃ মোশারফ হোসেনের। সেই মতই এবার মুরারই বিধানসভায় প্রার্থী হলেন শিশু চিকিত্‍সক ডাঃ মোশারফ হোসেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.