শনিবার রাতেই মৃত্যু ক্যানিংয়ের গুলিবিদ্ধ তৃণমূল নেতার

শনিবার রাতেই মৃত্যু ক্যানিংয়ের গুলিবিদ্ধ তৃণমূল নেতার
শনিবার রাতেই মৃত্যু ক্যানিংয়ের গুলিবিদ্ধ তৃণমূল নেতার/ প্রতীকী ছবি

সমস্ত চিকিৎসা পদ্ধতিকে হার মানিয়ে মৃত্যু হল ক্যানিংয়ের নিকারিঘাটা অঞ্চল যুব তৃণমূলের সভাপতি মহরম শেখের। শনিবার রাত দুটো নাগাদ মৃত্যু হয় তাঁর। গতরাতেই চিকিৎসার উন্নতির জন্য ক্যানিং মহকুমা হাসপাতাল থেকে কলকাতায় পাঠানো হয় তাঁকে। কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হয়নি।

শনিবার রাত আটটার কিছু পরে দলীয় অফিস থেকে কাজ সেরে বাইক করে বাড়ি ফিরছিলেন মহরম শেখ। সেই সময় তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে দুষ্কৃতীরা। দুটি গুলি লাগে তাঁর বুকে। মুহূর্তেই রক্তে ভেসে যায় ওই স্থান লুটিয়ে পড়েন তৃণমূলের ওই যুব সভাপতি। স্থানীয়রা তখন তাঁকে তড়িঘড়ি ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যান। এরপরেই আঘাত গুরুতর বুঝতে পেরেই চিকিৎসকরা তাঁকে চিত্তরঞ্জন হাসপাতালে স্থানান্তর করে দেন।

ক্যানিং পশ্চিমের বিধায়ক পরেশরাম দাস জানান, প্রথমে থেকেই মহরম শেখের শারীরিক অবস্থা সঙ্কটজনক ছিল। বুকের ডান দিকে গুলি লাগা অংশ থেকে ক্রমাগত রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। কোনও ভাবেই তা বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছিল না। এছাড়াও তাঁর জ্ঞান না থাকায় বেশ কিছু চিকিৎসা পদ্ধতি শুরু করাই যায়নি। তবে চিকিৎসকরা সব রকম ভাবে চেষ্টা করেন। এরপরেই শনিবার রাত দুটো নাগাদ মৃত্যু হয় তাঁর।

প্রসঙ্গত, মাস কয়েক আগেও একবার মহরমের উপর গুলি চলার ঘটনা ঘটেছিল। সেবার তাঁর পায়ে গুলি লেগেছিল। বিষয়টি যুব তৃনমূলের তরফ থেকে পুলিশ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হলেও এ বিষয়ে কোনোরকম পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলেও অভিযোগ করছে শাসক দল।

যদিও এই ঘটনায় কে বা কারা জড়িত সে বিষয়টি এখনও পরিষ্কার নয়। তবে আততায়ীদের মধ্যে কয়েকজনকে চিনতে পেরেছিলেন মহরম ও তার পরিবারের সদস্যরা। সেই সূত্র ধরেই আততায়ীদের খোঁজ করছে ক্যানিং থানার পুলিশ। দলীয় কর্মীকে গুলি করে খুনের চেষ্টার খবর পেয়ে ক্যানিং পশ্চিম এর বিধায়ক পরেশ দাস ও তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক তথা ক্যানিং পূর্ব বিধানসভার বিধায়ক শওকাত মোল্লা ক্যানিং হাসপাতালে আসেন। এই ঘটনায় দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি করেছেন দুজনেই।