দুর্দান্ত খেলেছে! এই দুই ক্রিকেটারকে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে ম্যাচ জেতার কৃতিত্ব দিলেন ধোনি

দুর্দান্ত খেলেছে! এই দুই ক্রিকেটারকে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে ম্যাচ জেতার কৃতিত্ব দিলেন ধোনি / Image Source : Instagram @chennaiipl
দুর্দান্ত খেলেছে! এই দুই ক্রিকেটারকে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে ম্যাচ জেতার কৃতিত্ব দিলেন ধোনি / Image Source : Instagram @chennaiipl

গতকাল, ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে শুরু হয়েছে আইপিএলের দ্বিতীয় পর্ব। আর দ্বিতীয় পর্বের প্রথম ম্যাচেই ধোনির চেন্নাই সুপার কিংসের মুখোমুখি হয়েছিল রোহিত শর্মার মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। সেই ম্যাচে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে ২০ রানে জয়লাভ করেছে চেন্নাই। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে চেন্নাই সুপার কিংসের শুরুটা নড়বড়ে হলেও পরবর্তীতে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৫৬ রান তুলে ফেলে চেন্নাই। জবাবে মাঠে খেলতে নেমে সেই লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছাতে পারেনি মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। শেষ পর্যন্ত এই ম্যাচ জিতে নেয় চেন্নাই সুপার কিংসই।

এই ম্যাচে শুরুতেই চেন্নাইয়ের ৩০ রানের মধ্যে ৪ উইকেট পড়ে যায়। তবে সিএসকের হাল ধরে থাকেন ওপেনার রুতুরাজ গাইকোয়াড়। অন্যান্য ব্যাটসম্যানরা ব্যর্থ হলেও কেরিয়ারের অন্যতম সেরা ইনিংস(অপরাজিত ৮৮)খেলেন রুতুরাজ। তাঁকে যোগ্য সঙ্গত দেন ডোয়েন ব্র‍্যাভোও (৮ বলে ২৩ রান)। দু’জনের জোরদার ব্যাটিংয়ের দৌলতেই ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে মুম্বইয়ের সামনে ১৫৬ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর খাঁড়া করে চেন্নাই। সেই রান তাড়া করতে গিয়ে পরপর উইকেট হারায় মুম্বই। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ১৩৬ রানে শেষ হয় মুম্বইয়ের ইংনিস৷ চেন্নাই ম্যাচ জেতে ২০ রানে৷

দুর্দান্ত খেলেছে! এই দুই ক্রিকেটারকে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে ম্যাচ জেতার কৃতিত্ব দিলেন ধোনি / Image Source : Instagram @chennaiipl
দুর্দান্ত খেলেছে! এই দুই ক্রিকেটারকে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে ম্যাচ জেতার কৃতিত্ব দিলেন ধোনি / Image Source : Instagram @chennaiipl

ম্যাচ শেষে বিজয়ী অধিনায়ক হিসেবে ধোনির মুখে ছড়িয়ে পড়ে হাসি। ম্যাচ জয়ের সমস্ত কৃতিত্বই তিনি দেন রুতুরাজ ও ব্র‍্যাভোকে৷ ম্যাচের পর ওই দুই ক্রিকেটারের প্রশংসা করে ধোনি বলেন, “৩০ রানে ৪ উইকেট হারানোর পরও আমরা সম্মানজনক স্কোর তৈরি করতে পেরেছিলাম। আমরা প্রথমে ১৪০-এর কথা ভেবেছিলাম কিন্তু ১৬০ এর কাছাকাছি পৌঁছানো অসাধারণ ছিল। রুতুরাজ এবং ব্রাভোই আমাদের প্রত্যাশার চেয়ে আরও ভালো স্কোর করতে সাহায্য করলেন।”

পাশাপাশি ক্যাপ্টেন কুল আরও বলেন, “মিডল অর্ডারে ব্যাট করা কঠিন ছিল। রায়ডু চোট পেয়েছিলেন, তাই সেখান থেকে ফিরে আসা কঠিন ছিল। বল উইকেটে অসম গতিতে আসছিল এছাড়াও প্রাথমিকভাবে বলটি একটু ধীর গতিতে আসছিল। কিন্তু আমরা বুদ্ধিমানের মতো ব্যাটিং করেছি এবং ভালোভাবে শেষ করেছি। একজন ব্যাটসম্যানকে শেষ পর্যন্ত টিকে থাকাটাই বুদ্ধিমানের কাজ ছিল। গাইকোয়াড় এবং ব্র‍্যাভো শেষে দুর্দান্ত ব্যাটিং করে জেতার মতো স্কোরের কাছে নিয়ে গেলেন আমাদের।”