‘এখন ব্যবসা করার সময় নয়’, ভ্যাকসিনের দামে বৈষম্যে বিরক্ত মমতা! চিঠি দেবেন মোদীকে

'এখন ব্যবসা করার সময় নয়', ভ্যাকসিনের দামে বৈষম্যে বিরক্ত মমতা! চিঠি দেবেন মোদীকে
'এখন ব্যবসা করার সময় নয়', ভ্যাকসিনের দামে বৈষম্যে বিরক্ত মমতা! চিঠি দেবেন মোদীকে

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ দেশব্যাপী করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত মানুষ। স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার মুখে। এই কঠিন সময়ে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সবথেকে বড় অস্ত্র করোনা ভ্যাকসিন। সেই কারণেই গণটিকাকরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। ১ মে থেকে ১৮ বছর হলেই করোনা টিকা নেওয়া যাবে বলে কেন্দ্রের পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে। মূলত টিকাকরণের গতি দ্রুত করাই এখন একমাত্র লক্ষ্য কেন্দ্র সরকারের।

এদিকে ইতিমধ্যেই কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলি রাজ্যগুলিকে মুল উৎপাদনের ৫০ শতাংশ টিকা সরাসরি দিতে পারবে। এর অর্থ ভ্যাকসিন পাওয়ার জন্য আর রাজ্যগুলিকে কেন্দ্রের উপর নির্ভর করে থাকতে হবে না।

এই পরিস্থিতিতে সেরাম ইনস্টিটিউটের পক্ষ থেকে ভ্যাকসিন ডোজের দামও ঘোষণা করে দেওয়া হল। বুধবার এই সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে, সমস্ত রাজ্য সরকারকে কোভিশিল্ডের প্রতি ডোজের জন্য দিতে হবে ৪০০ টাকা করে। অর্থাৎ দুটি ডোজের জন্য লাগবে ৮০০ টাকা। পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালগুলির ক্ষেত্রে কোভিশিল্ডের প্রতি ডোজের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৬০০ টাকা করে। তবে, কেন্দ্র এখনও ১৫০ টাকাতেই প্রতিটি ডোজ পাবে।

ভ্যাকসিনের দাম নিয়ে এই বৈষম্যের কারণে বেজায় ক্ষুব্ধ হলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কেন্দ্রীয় সরকার যে দামে ভ্যাকসিন কিনছে, তার থেকে কেন বেশি দামে রাজ্যকে বা বেসরকারি হাসপাতালকে ভ্যাকসিন কিনতে হবে? সেই প্রশ্নই তুললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে কড়া চিঠি দেবেন বলেও এদিন জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন মালদহে রাজ্যের সার্বিক করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখানেই তিনি এ প্রসঙ্গে কথা বলেন।

তবে, দেশের এই অতিমারির সময় কেন ভ্যাকসিন নিয়ে ব্যবসা করা হবে? কেন্দ্র সরকার যে দামে ভ্যাকসিন কিনতে পারছে, রাজ্যগুলি কেন সেই দামেই ভ্যাকসিন কিনতে পারবে না? বেসরকারি হাসপাতালগুলিকেও কেন বেশি দামে ভ্যাকসিন কিনতে হবে? এইসব প্রশ্নে প্রতিবাদে মুখর হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ প্রসঙ্গে তিনি দাবি করেছেন যে, অবিলম্বে এ বিষয়ে কেন্দ্র সরকারকে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

এদিন ভ্যাকসিনের দামে এই বৈষম্য নিয়ে ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী বলেন যে, ‘এখন মানুষকে সাহায্য করবে না ব্যবসা করবে? এখন ব্যবসা করার সময় নয়, মানুষকে বাঁচানোর সময়৷ জনগণের উপর সবটা ছেড়ে দিলে তো আর হবে না। কেন্দ্রীয় সরকার দেড়শো টাকা করে পেত, রাজ্য কেন ওই দামে পাবে না?’ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরও জানিয়েছেন, ভ্যাকসিন কেনার জন্য ইতিমধ্যেই ১০০ কোটি টাকার তহবিল তৈরি রেখেছে রাজ্য সরকার৷ তিনি জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই রাজ্যে ৯৩ লক্ষ ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে৷ কেন্দ্রের কাছে আরও ১ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন চাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

অন্যদিকে, ১৮ ঊর্ধ্বে প্রত্যেককে করোনার টিকা দেওয়ার প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, যেহেতু ২ মে ভোটের ফল ঘোষণা রয়েছে, তাই ভোট প্রক্রিয়া পুরোপুরি মিটলে, আগামী ৫ মে থেকে রাজ্যে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে প্রত্যেককে টিকাকরণের কর্মসূচি শুরু হবে৷

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.