আগস্টে পুনরায় খোলা হোক প্রেক্ষাগৃহ, সুপারিশ তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের

আগস্টে পুনরায় খোলা হোক প্রেক্ষাগৃহ, সুপারিশ তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের
আগস্টে পুনরায় খোলা হোক প্রেক্ষাগৃহ, সুপারিশ তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের

বংনিউজ২৪x৭ বিনোদন ডেস্কঃ করোনাভাইরাস এবং তার জেরে হওয়া লকডাউনের জেরে তিন মাসের বেশি সময় ধরে বন্ধ রয়েছে দেশের সমস্ত প্রেক্ষাগৃহ। বন্ধ চলচ্চিত্রের শ্যুটিংও। এর জেরে একদিকে যেমন স্থগিত হয়েছে বহু চলচ্চিত্রের মুক্তি, তেমনই বাধ্য হয়েই অনেক চলচ্চিত্রের মুক্তি হয়েছে বা হচ্ছে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে। অনেক পরিচালক প্রযোজকের মতে, এতে করে ক্ষতি হচ্ছে চলচ্চিত্র নির্মাতাদের।

আবার অনেক পরিচালক- প্রযোজক এই নতুন প্ল্যাটফর্মে তাঁদের চলচ্চিত্রের মুক্তিতে রাজি নয়। তাঁদের দাবি, তাঁরা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার অপেক্ষা করবেন। কিন্তু কতদিন! কতদিন এই করোনা এবং লকডাউনের জেরে বন্ধ থাকবে প্রেক্ষাগৃহ। ইতিমধ্যে চলচ্চিত্র শিল্পের ক্ষতি হয়েছে প্রভুত। এদিকে ব্যাপক হারে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। সিঁদুরে মেঘ দেখছে চলচ্চিত্র জগত এবং এই শিল্পের সঙ্গে জড়িত বহু অভিনেতা-অভিনেত্রী থেকে পরিচালক, প্রযোজক, টেকনিশিয়ান সকলেই।

এহেন পরিস্থিতিতে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রক কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে সুপারিশ করেছে, আগস্টে সারা দেশের প্রেক্ষাগৃহগুলি পুনরায় চালু করার জন্য। শুক্রবার সিআইআই মিডিয়া কমিটির সঙ্গে এক বৈঠকে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের সচিব অমিত খারে সেই ইঙ্গিতই দিয়েছেন বলে সূত্রের খবর। অমিত খারে জানিয়েছেন যে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের থেকে অজয় ভাল্লা এ বিষয়ে তাঁদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবেন।

খারে জানিয়েছেন, তিনি সুপারিশ করেছেন যে, আগস্টের প্রথমদিকে বা শেষের অর্থাৎ ৩১ আগস্টের দিকে ভারতে পুনরায় প্রেক্ষাগৃহগুলি চালু করার। তাঁদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে, প্রেক্ষাগৃহে প্রথম সারিতে একটা করে আসন বাদ দিয়ে বসার ব্যবস্থা এবং তারপরের সারি সম্পূর্ণ শূন্য রাখা, এইভাবে প্রেক্ষাগৃহ জুড়ে দর্শকদের বসার ব্যবস্থা করা যেতে পারে।

অমিত খারে বলেছেন, তাঁর মন্ত্রকের তরফ থেকে সুপারিশ করা হয়েছে যে, দুই মিটারের সামাজিক দূরত্বের বিষয়টি বিবেচনা করে দেখার। তার বদলে তাঁদের পক্ষ থেকে দুই গজের দূরত্ব রাখার কথা বলে হয়েছে। যদিও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক থেকে এখনও এ বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি বলেই খবর। বিষয়টি বিবেচনা করে দেখা হবে বলে জানানো হয়েছে।

এই বৈঠকে উপস্থিত প্রেক্ষাগৃহের মালিকেরা অবশ্য জানিয়েছেন যে, মাত্র ২৫ শতাংশ দর্শক নিয়ে প্রেক্ষাগৃহ চালানো প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ রাখার থেকেও খারাপ।
সভায় উপস্থিতদের মধ্যে ছিলেন, বেশ কয়েকটি টিভি চ্যানেলের মিডিয়া সিইও, ওটিটি প্ল্যাটফর্ম এবং সিআইআই মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান সহ আরও অনেকে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.