ফিরছে আমফানের স্মৃতি! সারারাত নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী

ফিরছে আমফানের স্মৃতি! সারারাত নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী
ফিরছে আমফানের স্মৃতি! সারারাত নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী

আমফানের মতই যশের মোকাবিলা করতেও মঙ্গলবার সারারাত নবান্নে কাটালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই ঘূর্ণিঝড়ের মোকাবেলায় কোথাও যেন সামান্য ফাঁক না থাকে সে বিষয় কড়া নজর দিলেন তিনি।

মঙ্গলবার রাত ন’টা নাগাদ নবান্নের কন্ট্রোল রুমে পৌঁছে যান মুখ্যমন্ত্রী। সেখান থেকে গোটা বিষয়টি উপর নজর রাখেন। দফায় দফায় প্রশাসনিক বৈঠক করেন আধিকারিকদের সঙ্গে। প্রয়োজনীয় নির্দেশ দেন তাদের। একইসঙ্গে আবহাওয়া দপ্তরের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ডিজিটাল স্ক্রিনে যশের গতিপথ বোঝার চেষ্টা করেন।

ইতিমধ্যে বিভিন্ন ব্লকে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। শাসকদের সঙ্গেও যোগাযোগ রাখা হচ্ছে বলে গতকাল জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিকে ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলা করার জন্য প্রায় ৭৪ হাজার কর্মচারী ও অফিসার যুক্ত রয়েছেন বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি ঝড় আছড়ে পড়ার দুই তিন ঘণ্টা পর্যন্ত এর প্রভাব থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করেছেন তিনি তাই সকলকে সাবধানে থাকার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

যদিও আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে খবর, আমফানের মত অতটাও শক্তিশালী নয় যশ। তাই এর প্রভাবও আমফানের মতো ক্ষতিকর হবে না। কিন্তু তা সত্বেও কোনরকম ফাঁক রাখতে রাজি নয় রাজ্য প্রশাসন। ইতিমধ্যে পশ্চিমবঙ্গ এবং ওড়িশার উপকূলবর্তী এলাকায় লাল সর্তকতা জারি হয়েছে। এদিকে মৌসম ভবন সূত্রে খবর ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে যশের।