‘নিহত বাঘের চেয়ে আহত বাঘ আরও ভয়ঙ্কর’, সভামঞ্চ থেকে হুঁশিয়ারি মমতার

‘নিহত বাঘের চেয়ে আহত বাঘ আরও ভয়ঙ্কর’, সভামঞ্চ থেকে হুঁশিয়ারি মমতার
‘নিহত বাঘের চেয়ে আহত বাঘ আরও ভয়ঙ্কর’, সভামঞ্চ থেকে হুঁশিয়ারি মমতার / ছবি সৌজন্যে- Screengrab from Facebook Video Posted By @MamataBanerjeeOfficial

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ আজ নন্দীগ্রাম দিবস। আজ সকালেই নন্দীগ্রাম দিবস উপলক্ষে ‘শহিদ’ স্মরণে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে টুইট করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপর রবিবার কলকাতায় ৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পথ মিছিল করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। এই মিছিলের নেতৃত্ব ছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন তাঁর সঙ্গে মিছিলে অংশ নিয়েছিলেন সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ অন্যান্য তৃণমূল নেতা-নেত্রীরা।

এদিকে রবিবার দুপুরে মেয়ো রোড থেকে মিছিল শুরুর আগেই টুইটারে বার্তা দিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী। তিনি টুইটে লিখেছিলেন, ‘আমরা লড়াই চালিয়ে যাব। আমার এখনও যন্ত্রণা হচ্ছে। কিন্তু মানুষের ব্যথা আমার থেকেও বেশি।’ এর পাশাপাশি তিনি লেখেন যে, ‘ আমাদের মাটিকে রক্ষা করার জন্য অনেক লড়াই করেছি আগে। আরও কঠিন লড়াই অপেক্ষা করছে আমাদের জন্য। কাপুরুষদের সামনে মাথা নোয়াবো না।’

উল্লেখ্য, রাজ্য-রাজনীতিতে আজকের দিনটি একপ্রকার ঐতিহাসিক হয়ে থাকল, এই মিছিলের কারণে। তার অন্যতম কারণ, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে এর আগে তাঁকে কখনও হুইলচেয়ারে করে মিছিলে অংশ নিতে দেখা যায়নি। দলের নেত্রীর এই লড়াই করার মানসিকতায় উদ্বুদ্ধ দলীয় কর্মীরাও। তাঁদের বার্তা ‘ভাঙা পা নিয়েই খেলা হবে’।

আজ নন্দীগ্রাম দিবস উপলক্ষ্যে কলকাতার মেয়ো রোড থেকে হাজরা মোড় পর্যন্ত মিছিলে যোগ দিলেন এবং হুইলচেয়ারে করেই নেতৃত্ব দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভারতের অন্য কোনও মুখ্যমন্ত্রীর এমন নজির নেই বলেই দাবি করছে রাজনৈতিক মহল।

অন্যদিকে এদিন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এসে পৌঁছানোর আগেই, সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন যে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখনও অসুস্থ এবং যন্ত্রণায় কষ্ট পাচ্ছেন। তাও তিনি হুইলচেয়ারে করেই আজকের মিছিলে অংশগ্রহণ করবেন। তিনি বলেন যে, বিজেপি ভয় পেয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তাই তাঁর উপর আক্রমণ করা হয়েছে। পাশাপাশি তিনি হুঁশিয়ারির সুরে বলেন, বহিরাগতদের তাড়াতে ভাঙা পায়ের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই যথেষ্ট।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, নন্দীগ্রামে মনোনয়নপত্র পেশের পর, প্রচারে বেরিয়েই আহত হয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি পায়ে এবং শরীরের বিভিন্ন অংশ আঘাত পান। তবে, তিনি হাসপাতালের বেডে শুয়েই বার্তা দিয়েছিলেন যে, শীঘ্রই তিনি প্রচারে বেরোবেন। কোনও মিটিং, মিছিল তিনি নষ্ট করবেন না। সেই কথাই তিনি রাখলেন। হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়ে ফিরেই, তিনি আজ মিছিলে নেতৃত্ব দিলেন।

তিনি আজ মিছিল শেষে হাজরার সভামঞ্চ থেকে বলেছেন যে, জীবনে এর আগেও অনেক আঘাত পেয়েছেন। কিন্তু থেমে যাননি। প্রচারের পাঁচ-ছ’দিন এমনিতেই নষ্ট হয়ে গেছে। আর বিশ্রাম নিলে, বাংলাকে নিয়ে যারা চক্রান্ত করছেন, তাঁরা সফল হয়ে যাবেন। এদিন তিনি চিকিৎসক এবং যারা তাঁর শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নিয়েছেন, তাঁদের কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, গণতন্ত্র পদদলিত হচ্ছে, সাধারণ মানুষের কাছে গণতন্ত্রকে আবারও ফিরিয়ে দিতে হবে। অশুভ শক্তির বিনাশ করতে হবে।

পাশাপাশি হাজরা একটা ঐতিহাসিক জায়গা। এই হাজরাতেই অনেকবার তাঁকে প্রাণে মারার চেষ্টা হয়েছে, আবার এই হাজরাই আবার তাঁর প্রাণ ফিরিয়েও দিয়েছে বলে তিনি উল্লেখ্য করেন। এর সঙ্গে ভাঙা পা নিয়েই তিনি সারা বাংলা ঘুরবেন বলে জানান। ভাঙা পা নিয়েই খেলা হবে বলে হুঙ্কার দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি আজ মিছিলের শেষে সভামঞ্চ থেকে হুঙ্কার ও চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন প্রতিপক্ষকে। বলেন যে, ‘নিহত বাঘের থেকে আহত বাঘ আরও ভয়ঙ্কর।’ উল্লেখ্য, আজ তিনি এখান থেকেই দুর্গাপুরের উদ্দেশে রওনা দেন। কাল থেকে পুরুলিয়ায় মুখ্যমন্ত্রীর নির্বাচনী প্রচার রয়েছে।

 

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.