বিশ্ব বাংলা বাণিজ্য সম্মেলনে মোদীকে আমন্ত্রণ তৃণমূল সুপ্রিমোর! সঙ্গে জানালেন এই তিন দাবি

বিশ্ব বাংলা বাণিজ্য সম্মেলনে মোদীকে আমন্ত্রণ তৃণমূল সুপ্রিমোর! সঙ্গে জানালেন এই তিন দাবি
বিশ্ব বাংলা বাণিজ্য সম্মেলনে মোদীকে আমন্ত্রণ তৃণমূল সুপ্রিমোর! সঙ্গে জানালেন এই তিন দাবি

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ আজই দিল্লিতে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সামনেই রয়েছে বিশ্ব বাংলা বাণিজ্য সম্মেলন রয়েছে। আর সেই সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এদিন দেখা করে এই আমন্ত্রণ জানান তিনি। পরে তিনি সংবাদমাধ্যমের সামনে জানান যে, ‘আমন্ত্রণ গ্রহন করেছেন প্রধানমন্ত্রী।’

মোদীর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে বেরিয়ে এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন যে, ‘রাজ্য এগোলে দেশো এগোবে। রাজনৈতিক মতপার্থক্য থাকতেই পারে৷ কিন্তু তার প্রভাব যাতে কেন্দ্র- রাজ্য সম্পর্কে না পড়ে, সেই বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছি৷ তাই ২০ এবং ২১ এপ্রিলে পশ্চিমবঙ্গে যে বিশ্ব বাংলা সম্মেলন হবে সেখানে প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। করোনার কারণে বাণিজ্যের অবস্থা খারাপ। তাই কেন্দ্র-রাজ্য মিলে একটা সম্মেলন করলে, তা ভাল। আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী।’

কেবল প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানোই নয়। এদিন রাজ্যের দাবিদাওয়া নিয়েও প্রধানমন্ত্রীর সামনে সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘আমাদের ওখানে অনেক প্রাকৃতিক বিপর্যয় হয়েছে। আমফান, ফণি, যশের কারণে রাজ্যের যে ক্ষতি হয়েছে, এর অনেক টাকা এখনও আমরা কেন্দ্রের থেকে পাই। এছাড়া বিভিন্ন প্রকল্পও রয়েছে। কেন্দ্রের কাছে ৯৬ হাজার কোটির বেশি টাকা বকেয়া রয়েছে। আমি প্রধানমন্ত্রীকে বলেছি টাকা দেওয়ার জন্য। টাকা না দিলে রাজ্য কীভাবে চলবে? উনি বিষয়টি দেখার আশ্বাস দিয়েছেন।’ এছাড়া নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে রাজ্যের পাট শিল্পের উন্নয়ন নিয়েও কথা হয়েছে জানান মুখ্যমন্ত্রী।

এর সঙ্গে বিএসএফ-এর এক্তিয়ার বৃদ্ধির প্রতিবাদ, রাজ্যের বকেয়া প্রায় ৯৮ হাজার কোটি টাকা মিটিয়ে দেওয়ার জন্যও নরেন্দ্র মোদিকে অনুরোধ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ পাশাপাশি ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সিদের কোভিড ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন মমতা৷

এ দিনের বৈঠকে তিনি যে বিএসএফ-এর এক্তিয়ার বৃদ্ধির বিষয়টি তুলবেন, তা আগেই জানিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বৈঠক থেকে বেরিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামো খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ তাকে আরও শক্তিশালী করতে হবে৷ বিএসএফ আমাদের শত্রু নয়৷ কিন্তু বিএসএফ-কে অতিরিক্ত ক্ষমতা দিলে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে সংঘাত হবে৷ আমাদের রাজ্যে বিএসএফ উত্তর দিনাজপুর, কোচবিহার, উত্তর চব্বিশ পরগণার মতো সীমান্তবর্তী জেলাগুলিতে বেশ কয়েকবার গুলি চালানোয় অনেকের মৃত্যু হয়েছে৷ রাজ্যের থেকে আরও সহযোগিতার প্রয়োজন হলে বলুন, আমরা করতে তৈরি৷ কিন্তু বিএসএফ-এর ক্ষমতা বৃদ্ধির এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করুন৷’

অন্যদিকে, এর পাশাপাশি রাজ্য সরকারের বকেয়া ৯৮ হাজার কোটি টাকার বেশি মিটিয়ে দেওয়ার জন্যও প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের রাজ্যে যশ, আমফানের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়েছে৷ ৯৮ হাজার কোটি টাকারও বেশি বকেয়া রয়েছে৷ আমাদের রাজ্য কীভাবে চলবে যদি কেন্দ্র টাকা না দেয়? উনি বলেছেন বিষয়টি দেখবেন৷’

বাংলা সংক্রান্ত বিভিন্ন দাবির পাশাপাশি এ দিন ত্রিপুরায় রাজনৈতিক হিংসার বিষয়টিও প্রধানমন্ত্রীর সামনে তুলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ যেভাবে সায়নী ঘোষের মতো জনপ্রিয় একজন অভিনেত্রী এবং তৃণমূল কংগ্রেসের নেত্রীকে ভুয়ো অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর সামনে সেই প্রসঙ্গও তোলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷